আজ শুক্রবার রাত ১২:২২, ২০শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং, ৫ই কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৮শে মুহাররম, ১৪৩৯ হিজরী

অগমেডিক্সে ৭ হাজারেরও বেশি বাংলাদেশির কাজের সুযোগ হচ্ছে

নিউজ ডেস্ক | বার্তা বাজার .কম
আপডেট : মার্চ ১১, ২০১৭ , ৮:০৮ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : তথ্য ও প্রযুক্তি
পোস্টটি শেয়ার করুন

যুক্তরাষ্ট্র-ভিত্তিক গুগল গ্লাস স্টার্টআপ ও স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান অগমেডিক্স আগামী ৫ বছরে বাংলাদেশ থেকে ৭ সহস্রাধিক জনবল নিয়োগের ঘোষণা দিয়েছে।

 

শুক্রবার সন্ধ্যায় ধানমন্ডির পান্থপথস্থ অগমেডিক্স ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানানো হয়। এছাড়াও জানানো হয়, এই নিয়োগ পরিকল্পনা নিয়ে অগমেডিক্সের কো-ফাউন্ডার পেলু ট্র্যান এবং প্রতিষ্ঠানটির শীর্ষ বিনিয়োগকারী অরবিমেড-এর ভেঞ্চার পার্টনার স্টিভেন ইয়েসিয়েছ চলতি সপ্তাহে বাংলাদেশ সফর করেছেন।

এসময় তারা স্থানীয় ব্যবসায়ীদের সাথে কোম্পানির নিয়োগ পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করেন। সেই আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ৫ বছরে অগমেডিক্স ও এর পার্টনাররা ঢাকাসহ সমগ্র বাংলাদেশ থেকে প্রচুর জনবল নিয়োগ দেবে, যারা আমেরিকার ডাক্তারদের রিমোট পার্সোনাল এসিস্ট্যান্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

অগমেডিক্সের কো-ফাউন্ডার পেলু ট্র্যান এবং অরবিমেড-এর ভেঞ্চার পার্টনার স্টিভেন ইয়েসিয়েছ-এর উপস্থিতিতে ও অগমেডিক্স বাংলাদেশের ম্যানেজিং ডিরেক্টর আহমাদুল হকের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী, অগমেডিক্সের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা সহ আমন্ত্রিতরা।

বক্তব্যে জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, বাংলাদেশ এখন ইমার্জিং টেকনোলজির জন্য গন্তব্য এবং দেশের মেধাবী যুবকদের কল্যাণে উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে আমাদের শীর্ষ উদাহরণ হচ্ছে অগমেডিক্স।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ থেকে অগমেডিক্স’র ৭ সহস্রাধিক তরুণ কর্মী নিয়োগের সিদ্ধান্তটি সত্যিই প্রসংশনীয়। আইসিটি মন্ত্রণালয় এলআইসিটি প্রোগ্রামের মাধ্যমে অগমেডিক্সের জন্য প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষিত জনবল সরবরাহ করতে কাজ করছে বলেও জানান তিনি।

পেলু ট্র্যান বলেন, অগমেডিক্সের পরিচালনা কাজে ও আমেরিকার ডাক্তারদের সাথে মেধাবী স্ক্রাইবদের সংযোগ ঘটাতে বাংলাদেশ একটি আদর্শ জায়গা।

তিনি আরো বলেন, পুরো বাংলাদেশ জুড়েই ইংরেজি প্রচলিত আছে এবং দেশের ৫০ শতাংশ জনসংখ্যাই ২৫ বছরের নিচে ও প্রযুক্তিতে পারদর্শী।

অগমেডিক্স সেবার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ শুধু স্ক্রাইব সরবরাহ করছে না, কোম্পানির মূল অগমেডিক্স সফটওয়্যার’র ধারণা থেকে শুরু করে ডেভেলপমেন্ট, টেস্টিং ও সাপোর্ট – সবই মেড ইন বাংলাদেশ।

বাংলাদেশে অগমেডিক্সের পান্থপথ কার্যালয়ে বর্তমানে প্রায় ১২ জন ইঞ্জিনিয়ার ও বিভিন্ন বিভাগে বেশ কিছু কর্মী নিযুক্ত রয়েছে।

অরবিমেড-এর ভেঞ্চার পার্টনার স্টিভেন ইয়েসিয়েছ বলেন, আমাদের বাংলাদেশ টিমের মান নিয়ে আমরা খুবই খুশি এবং তারা অগমেডিক্সের উন্নয়নে অনেক অবদান রাখছে।

সান ফ্রান্সিসকো, ঢাকা এবং অন্যান্য গ্লোবাল ও দেশীয় পার্টনারদের সাথে মিলে কার্যক্রমের ক্রমাগত উন্নতি ঘটানোর প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি ।

অগমেডিক্স বাংলাদেশের ম্যানেজিং ডিরেক্টর বলেন, আমরা বাংলাদেশ থেকে দেশের গন্ডি পেরিয়ে প্রযুক্তিনির্ভর সেবা দিয়ে যাচ্ছি এবং সন্তোষজনক সাড়া পাচ্ছি।