সাভারের আশুলিয়ায় স্ত্রী খুনের ঘটনায় আসামী আটক

অপরাধ ও দুর্নীতি ঢাকা

মোঃ আল মামুন খান, সাভার প্রতিনিধি: সাভারের আশুলিয়ায় স্ত্রী খুনের মামলার পলাতক আসামী গ্রেফতার করেছে আশুলিয়া থানা পুলিশ।

আশুলিয়ায় পরিচয় গোপন রেখে বিয়ে এবং দেড় মাসের মাথায় স্ত্রীকে খুন করে পলায়নকারী ইউনুস আলীকে (২৫) ঘটনার ৬ মাস পরে পুলিশ গ্রেফতারে সক্ষম হলো। ১১ ফেব্রুয়ারি (সোমবার) নাটোর জেলার সিংড়া থানার লাড়ুয়া হাতিয়ানদহ থেকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানায় পুলিশ।

ইউনুস আলী পাবনা জেলার আটঘরিয়া থানার চান্দাই পশ্চিমপাড়া গ্রামের মৃত বাবু প্রামাণিকের ছেলে।

ঘটনার বিবরণে প্রকাশ, আশুলিয়া থানাধীন নিশ্চিন্তপুর এলাকায় গার্মেন্টসে কাজ করার সুবাদে পরিচয় হয় হোসনে আরা এবং ইউনুস আলীর। একই ফ্লোরে কাজ করার সুবাদে এক সময় তারা জড়িয়ে পড়ে প্রেম ভালোবাসায়। সম্পর্কের এক পর্যায়ে চতুর ইউনুস বিয়ের প্রস্তাব দেয় হোসনে আরাকে। রেজিস্ট্রি করতে টাকা লাগবে এই অজুহাতে পরিচয় গোপন রেখে শুধু মৌলভী ডেকে বিয়ে হয় তাদের। পরে নাটকীয় বিয়ের প্রায় দেড় মাসের মাথায় স্ত্রীকে খুন করে পালিয়ে যায় ইউনুস। ঘটনার ৬ মাসের মাথায় এই চতুর খুনী গ্রেফতার হলো।

ঘটনার পর হোসনে আরার বোন স্বপ্না বেগম বাদী হয়ে ইউনুস আলীর জায়গায় ইউসুফ নাম উল্লেখ করে থানায় একটি মামলা করলেও সেখানে ঠিকানা উল্লেখ করা হয় অজ্ঞাত হিসেবে। আশুলিয়া থানা পুলিশ ৩ মাস মামলাটি তদন্ত করলেও তেমন কোন অগ্রগতি না থাকায় মামলার বাদি লোক মুখে পিবিআই এর কর্মকান্ড সম্পর্কে অবগত হয়ে পিবিআই, ঢাকা জেলা অফিসে এসে মামলাটি পিবিআইতে হস্তান্তরের জন্য অনুরোধ করেন।

মামলাটি পিবিআইতে আসার পরে পিবিআই হেডকোয়ার্টার্স এর নির্দেশে পিবিআই ঢাকা জেলার সাব ইন্সপেক্টর (এসআই) সালেহ ইমরান গত ১১ ডিসেম্বর মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করেন।

এবিষয়ে গণমাধ্যমকে এই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই সালেহ ইমরান বলেন, তদন্তভার গ্রহণ করে স্থানীয় সোর্স এবং প্রযুক্তিগত তথ্য বিশ্লেষণ করে জানতে পারি অভিযুক্ত ব্যক্তি ইউসুফ নয় তার আসল নাম ইউনুস আলী (২৫)। সে পাবনা জেলার আটঘরিয়া থানার চান্দাই পশ্চিমপাড়া গ্রামের মৃত বাবু প্রামাণিকের ছেলে। মামলার পর থেকে অভিযুক্ত ইউনুসের ব্যাপারে খোঁজ খবর নিয়ে ঘটনার সাথে তার সম্পৃক্ততা নিশ্চিত হয়ে ১১ ফেব্রুয়ারি সোমবার নাটোর জেলার সিংড়া থানার লাড়ুয়া হাতিয়ানদহ থেকে গ্রেফতার করেন বলে জানান এই কর্মকর্তা।

তিনি আরও বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত ইউনুস স্ত্রী হত্যার কথা স্বীকার করেছে এবং তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার স্ত্রী হোসনে আরার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন এবং পায়ের নুপুর উদ্ধার করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে পিবিআই ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হাসান বারী নূর জানান, মামলাটি বর্তমানে তদন্তাধীন আছে। আসামিকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে ঘটনার সাথে আর কারো সম্পৃক্ততা আছে কিনা তা যাচাই করে দেখা হচ্ছে।