মোদির অরুণাচল সফর নিয়ে ফুঁসছে চীন

আন্তর্জাতিক

ভারতের সীমান্তবর্তী অরুণাচল রাজ্যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরকে ঘিরে ফুঁসে উঠেছে চীন। বিরক্তি প্রকাশ করে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হুয়া চুনাইং বলেছেন, ভারতের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক যাতে উন্নত থাকে সেজন্য দুই দেশের সীমান্তেই সংযত আচরণ করতে বলা হয়েছিল।

কিন্তু একের পর এক রাজনৈতিক নেতা অরুণাচল সফরে এসে সেই সম্পর্কের অবনতি ঘটাচ্ছে। বেইজিংয়ের এ বিবৃতির তীব্র বিরোধিতা করে সতর্ক করে পাল্টা জবাব দিয়েছে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

চীনকে কড়া জবাব শুনিয়ে দেশটি জানায়, অরুণাচল ভারতের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। সেখানে দেশের প্রধানমন্ত্রীর সফরে কোনোভাবেই আপত্তি জানাতে পারে না চীন। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

শনিবার অরুণাচল সফরে গিয়ে ৪ হাজার কোটি রুপির একাধিক প্রকল্প উদ্বোধন করেন মোদি। অরুণাচলের হলোঙ্গিতে গ্রিনফিল্ড বিমানবন্দরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। উদ্বোধন করেন লোহিত জেলার তেজু শহরের একটি বিমানবন্দর।

এছাড়াও শেলায় স্ট্র্যাটেজিক টানেলের শিলান্যাস করেন, যার মাধ্যমে তাওয়াং পর্যন্ত যাতায়াতের সময় কমবে প্রায় ১ ঘণ্টা। গুয়াহাটিতে ব্রহ্মপুত্র নদের ওপর একটি ব্রিজের কাজের শিলান্যাসও করেন মোদি।

ভারতের প্রধানমন্ত্রীর এ সফরের বিরোধিতা করে আসছে চীন। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিবৃতিতে জানায়, ‘চীন-ভারত সীমান্ত প্রশ্নে চীনের অবস্থানে কোনো বিভ্রান্তি নেই। তা তাৎক্ষণিক বা সাময়িক নয়। তার ধারাবাহিকতা রয়েছে। অরুণাচল প্রদেশকে চীন কোনো দিনই স্বীকৃতি দেয়নি। চীন-ভারত সীমান্তের পূর্ব দিকে কোনো ভারতীয় রাজনীতিকের সফরকে আমরা আদৌ সমর্থন করি না।’

চুনিয়িং বলেছেন, ‘দুটি দেশের স্বার্থকেই মনে রাখার অনুরোধ জানাচ্ছি ভারতকে। চীনের স্বার্থ, চীনের উদ্বেগের কথাও যেন মনে রাখা হয়। যাতে দু’দেশের সম্পর্ক জোরদার হয়ে ওঠার গতি বাড়ে।