১৮, জানুয়ারী, ২০১৯, শুক্রবার | | ১১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০

মাশরাফি-সাকিব হতে লড়বে ১১ হাজার খুদে ক্রিকেটার

আপডেট: জানুয়ারি ১২, ২০১৯

মাশরাফি-সাকিব হতে লড়বে ১১ হাজার খুদে ক্রিকেটার

আজকের খুদে ক্রিকেটাররাইতো আগামীর মাশরাফি, সাকিব। কেউ বা হবেন তামিম, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ। আবার কেউ মোস্তাফিজ, মিরাজ। লাল সবুজের ক্রিকেটের এমন উজ্জ্বল আগামীকে লক্ষ্য করে গত তিন বছর ধরে স্কুল পর্যায় থেকে খুদে ক্রিকেটার বের করে আনছে প্রাইম ব্যাংক। কাজ করছে দেশি ক্রিকেটের সমৃদ্ধ পাইপ লাইন তৈরিতে।

সেই ধারা অব্যাহত থাকছে এবারও। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) ব্যবস্থাপনা ও প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের পৃষ্ঠপোষকতায় সারা দেশে শুরু হয়েছে দেশীয় ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় আসর প্রাইম ব্যাংক জাতীয় স্কুল ক্রিকেটের নতুন মৌসুম। এবারের আসরে অংশ নিচ্ছে দেশের ৫৫৬টি স্কুলের ১১ হাজার ১২০ জন খুদে ক্রিকেটার।

এ উপলক্ষে শনিবার (১২ জানুয়ারি) মিরপুর শের ই বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠারে বিস্তারিত তুলে ধরেন বিসিবি পরিচালক ও বিসিবির বয়সভিত্তিক ক্রিকেট টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান তানজিল চৌধুরী, প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী রাহেল আহমেদ ও প্রাইম ব্যাংক ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী ডক্টর আনোয়ার ইকবাল।

বৃহস্পতিবার ফরিদপুরে পর্দা উঠেছে জেলা পর্যায়ের খেলা আর চলতি মাসেই দেশের বাকি ৬৩ জেলায় শুরু হবে জেলা পর্যায়ের অন্যান্য খেলা। সর্বোচ্চ ১৩০ স্কুল অংশ নিচ্ছে ঢাকা বিভাগে, চট্টগ্রামের ৯০, খুলনায় ৮৪, রংপুরে ৭২, রাজশাহীতে ৬৮, বরিশালে ৪৪, সিলেটে ৩৬ আর ঢাকা মেট্রো’তে অংশ নিচ্ছে ৩২ স্কুল। ৬৪ জেলার সেরা স্কুলের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হবে বিভাগীয় চ্যাম্পিয়নশিপ। ৭ বিভাগীয় সেরা ও ঢাকা মেট্রো চ্যাম্পিয়নের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হবে ন্যাশনাল চ্যাম্পিয়নশিপ।

সংবাদ সম্মেলনে তানজিল চৌধুরী বলেন, ‘স্কুল ক্রিকেটের হারানো ঐতিহ্য গত তিন বছরে অনেকটাই ফিরে এসেছে। বিভিন্ন বয়সভিত্তিক জাতীয় দলের হয়ে এখন মাঠ মাতাচ্ছে স্কুল ক্রিকেট থেকে উঠে আসে খুদে ক্রিকেটাররা। বেশ সাফল্যের সঙ্গেই আমরা স্কুল ক্রিকেট নিয়ম করে মাঠে রাখতে পারছি। ভবিষ্যতে এসব খুদে ক্রিকেটারদের নিয়ে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা নেবে ক্রিকেট বোর্ড।’

রাহেল আহমেদ বলেন, ‘বাংলাদেশের ক্রিকেটের অগ্রযাত্রার সঙ্গে থাকতে পারা সবসময়ই বিশেষ কিছু। শুধু টুর্নামেন্টের পৃষ্ঠপোষকতা না, ক্রিকেটের প্রসারেও আমরা ভূমিকা রাখার চেষ্টা করছি। স্কুল ক্রিকেটের মাসকট টিঙ্গাকে গেলো বছর ঢাকা ও চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্কুলে আমরা নিয়ে গেছি। এবার ঢাকা, চট্টগ্রামের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে সিলেট। আমাদের একটাই উদ্দেশ্য কোমলমতি শিশুরা ক্রিকেটের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠুক।’

প্রাইম ব্যাংক জাতীয় স্কুল ক্রিকেটের এবারকার আসরে দেশের বিভিন্ন ভেন্যুতে ৯৬৫টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। জেলা পর্যায়ে হবে ৯০১, বিভাগীয় পর্যায়ে ৫৭ ও জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে হবে ৭ ম্যাচ। প্রাইম ব্যাংক স্কুল ক্রিকেটের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বগুড়া পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ আর রানার্স আপ সরকারী জুবিলি হাই স্কুল, সুনামগঞ্জ।