শুধু মুড়ি খাওয়া এতিম শিশুদের পাশে চাইল্ড এন্ড ওল্ড এইজ কেয়ার

মানুষ মানুষের জন্য
জীবন জীবনের জন্য
একটু সহানুভূতি কি
মানুষ পেতে পারে না…ও বন্ধু।।

ভুপেন হাজারিকার এই জীবনমুখী গান এখন আর শুধু গানেই সীমাবদ্ধ নেই। ছড়িয়ে পড়েছে সবার কর্মের মাধ্যমে। দেশের বিপদগ্রস্ত মানুষদের পাশে এখন অনেকেই এগিয়ে আসছে। সমাধানের পথ খুলে যাচ্ছে অনেকাংশেই। তবে সহযোগিতার হাত হয়তো সবার নেই। সবাই একসাথে এগিয়ে এলে তবেই সার্থক হবে ভূপেন হাজারিকা।

গত ৪ জুলাই , ২০১৯ সকাল ৮.৩১ মিনিটে “শুধু মুড়ি খেয়েই বেঁচে আছে শতাধিক এতিম শিশু” শিরোনামে বার্তা বাজারে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। যা ইতিমধ্যে প্রায় কয়েক কোটি মানুষের কাছে নিমিষেই পৌঁছে যায়। প্রতিবেদনটি প্রকাশের সময় নিকটস্থ থানায় যোগাযোগ করা হলে তারা জানিয়েছিলেন এই এতিম শিশুদের মানবেতর দিন যাপনের কথা। পরবর্তীতে এ বিষয়ে জানতে অনেকেই বার্তা বাজারের নিউজরুম নম্বরে যোগাযোগ করেন। সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছিলেন সবাই।

“শুধু মুড়ি খেয়েই বেঁচে আছে শতাধিক এতিম শিশু” শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদন

পরবর্তীতে বিষয়টি নজরে আসে চাইল্ড এন্ড ওল্ড এইজ কেয়ার এর চেয়ারম্যান মিল্টন সমাদ্দারের। গত ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ এই শতাধিক এতিম শিশুদের জন্য চাইল্ড এন্ড ওল্ড এইজ কেয়ার এর নিজস্ব খাদ্য ভান্ডার সহ তার নিজস্ব তহবিল থেকে যথাক্রমে চাউল ২৫০০ কেজি, গরুর গোস্ত ১০০ কেজি, ডাল ১০০ কেজি, আলু ৫০ কেজি, পেঁয়াজ ৫০ কেজি, রসুন ২০ কেজি, আদা ০৫ কেজি সহ সকল প্রকার মুদি বাজার সরবরাহ করেন তিনি।

তবে আত্মতৃপ্ত নন মিল্টন , চান সকলের সহযোগিতা। যোগাযোগ করলে এমনটাই জানান তিনি।

সর্বোপরি বরিশাল নগরীর পলাশপুর ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ৭ নম্বর সড়কের গুচ্ছ গ্রাম সংলগ্ন রহমানিয়া কিরাতুল কুরআন হাফেজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানা শতাধিক এতিম শিশুদের পাশে থাকা এমন সকল মিল্টনদের অভিনন্দন জানায় বার্তা বাজার।

বার্তা বাজার /এমবিইউ

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।