১৮, জানুয়ারী, ২০১৯, শুক্রবার | | ১১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০

অনুমতির প্রয়োজন নেই, এ অফিস আপনাদের

আপডেট: জানুয়ারি ৪, ২০১৯

অনুমতির প্রয়োজন নেই, এ অফিস আপনাদের

আমাদের দেশে সাধারণ মানুষ অনেক সময় প্রশাসনের সেবা থেকে বঞ্চিত হন, কারণ তারা ডিঙাতে পারেন না কর্মকর্তাদের অফিসের দরজা। উপজেলা প্রশাসন ও সাধারণ মানুষের মধ্যে সেই দূরত্ব কমাতে এবার ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ নিয়েছেন নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জাকির হোসেন।

নিজের কার্যালয়ের সামনে জাকির হোসেন ঝুলিয়ে দিয়েছেন একটি কাগজ, সেখানে লেখা রয়েছে ‘অফিসে প্রবেশের জন্য অনুমতির প্রয়োজন নেই, এ অফিস আপনাদের।’ গত বছরের নভেম্বর মাসে এ নোটিস টাঙানোর পর বেশ সাড়া পড়েছে এলাকাতে। যে কোনো প্রয়োজনে কৃষক, শ্রমিকসহ সাধারণ মানুষ নির্ভয়ে কড়া নাড়ছে নির্বাহী কর্মকর্তার দরজায়। এ ছাড়া মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানিত করতে গত বছর বিজয়ের মাস ডিসেম্বরের শুরুতে জাকির হোসেন নিজ কক্ষে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য রেখেছেন একটি সংরক্ষিত চেয়ার। এমন সব উদ্যোগকে প্রসংশা করে ফেসবুকে পোস্ট করেছেন অনেক। নুরুল্লা সৈকত নামের একজন লিখেছেন, ‘এমন মানসিকতার সরকারি কর্মকর্তার বড়ই অভাব।’

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হয় কলমাকান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকির হোসেনের সঙ্গে। নিজের এ ব্যতিক্রমীধর্মী উদ্যোগের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘অফিসগুলো তৈরি করা হয় জনসাধারণের কাজের জন্য। আমি যদি আমার অফিসে প্রবেশের জন্য কাউকে বাধা দিই, অফিসের ও সাধারণ মানুষের মাঝে পর্দা দিই, দেয়াল তুলি, তাহলে তারা কীভাবে সেবা নেবে। আমরা চাই জনসাধারণের সঙ্গে প্রশাসনের কোনো দূরত্ব থাকবে না। জনসেবার জন্যই আমাদের প্রশাসন। আমার এখানে সেবা নিতে এসে অনেকেই অনুমতি চান। আমার অফিসে আসার জন্য অনুমতির কেন প্রয়োজন পড়বে?’

কার্যালয়ে নোটিস লাগানোর পর কাজের ক্ষেত্রে অনেক পরিবর্তন এসেছে বলে জানান জাকির হোসেন। তিনি বলেন, ‘আগে আমার অফিসের সামনে অনেক লোক জড়ো হয়ে থাকতো। ভয়ে অনেকে ভেতরে প্রবেশ করতো না। এখন সবাই নির্ভয়ে তাদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে অফিসে কথা বলতে আসে। কেউ আসেন সামাজিক সমস্যা কিংবা অভিযোগ নিয়ে। দরিদ্র মানুষরা বয়স্কভাতা, বিধবাভাতার জন্য আসেন। কৃষক আসেন জমিতে সেচ যন্ত্র স্থাপনের ছাড়পত্রের বিষয়ে।’

মুক্তিযোদ্ধা সম্মানিত করার বিষয়ে জাকির হোসেন জানান, নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে ও মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সম্মানের জন্য প্রতীকী চেয়ার সংরক্ষণের এটি একটা নতুন উদ্যোগ। প্রত্যেক উপজেলায় এমনিভাবে একটি চেয়ার সংরক্ষিত রাখা হলে যেমন দেশের প্রতি দেশাত্মবোধ জাগবে তেমনি মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সম্মান বৃদ্ধি পাবে।
জাকির হোসেনের জন্ম গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া উপজেলায়। পড়ালেখা করেছেন শাহাজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ে। ২০১৩ সালে নড়াইলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন সিলেটের গোয়াইনঘাট ও কিশোরগঞ্জের ভৈরবে। ২০১৮ সালের অক্টোবর থেকে নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলায় নির্বাহী অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। জাকির হোসেন জানান, কলমাকান্দা উপজেলা হাওর, সমতল ও পাহাড়ের সমন্বয়ে গঠিত। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের কারণে এখানে পর্যটন সম্ভাবনা রয়েছে। কলমাকান্দার পর্যটন সম্ভাবনাকে বিকাশ করতে কাজ করতে চান তিনি।