১৭, জুলাই, ২০১৮, মঙ্গলবার | | ৪ জ্বিলকদ ১৪৩৯

বার বার শিকার হয়েছি, এর জন্য কত ওষুধ খেয়েছি, তবুও…

আপডেট: মে ১১, ২০১৮

বার বার শিকার হয়েছি, এর জন্য কত ওষুধ খেয়েছি, তবুও…

নিজের জীবনে ঘটে যাওয়া ঘটনা নিয়ে আজ তিনি অনেকটাই অকপট। কী ভাবে নিজের জীবনের সঙ্গে সাড়ে চার বছর ধরে লড়াই চালিয়েছেন তাঅবশেষে প্রকাশ্যে আনলেন ‘দঙ্গল’ খ্যাত অভিনেত্রী জাইরা ওয়াসিম। তাঁর এই স্বীকারোক্তি নিয়ে হইচই পড়ে গিয়েছে টিনসেল টাউন থেকে শুরু করে তাঁর ফ্যানদের মধ্যে।

কী বললেন তিনি?

জায়রা একটি ফেসবুক পোস্ট করেছেন। সেখানে তিনি জানিয়েছেন, গত সাড়ে চার বছর ধরে ভয়ানক মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছিল যে আত্মহত্যা করার কথাও মাথায় এসেছিল তাঁর!

জাইরা আরও জানান, হঠাত্ হঠাত্ একটা শূন্যতা কাজ করত তাঁর মধ্যে। শুধু তাই নয়, হ্যালুসিনেশন-এর ভূতও চেপে বসেছিল। আর এ ভাবেই রাতের পর রাত বিনিদ্রায় কেটেছে। বলেন, “বুঝতে পারছিলাম, আস্তে আস্তে ডিপ্রেসন আমাকে গ্রাস করে নিচ্ছে।” এই অবস্থা থেকে নিজেকে দূরে রাখতে তাই প্রতিদিন ৫টা করে অ্যান্টিডিপ্রেস্যান্ট নিতে হত বলেও জানিয়েছেন নায়িকা।

ঘটনার সূত্রপাত ১২ বছর বয়সে। সে সময় প্রথম প্যানিক অ্যাটাকের শিকার হন জায়রা। সেই অবস্থা থেকে বেরোতে না বেরোতে ফের অ্যাটাক হয়। তখন তাঁর বয়স ১৪। এ প্রসঙ্গে জাইরা বলেন, “এর পর কত বার যে এর শিকার হয়েছি, এর জন্য কত ওষুধ খেয়েছি তার ইয়ত্তা নেই।”

তাঁর কথায়: “আমাকে বার বারই বলা হত, এত অল্প বয়সে ডিপ্রেসনের শিকার! এমনটা হতে পারে না। এটা কোনও ব্যাপারই নয়। ডিপ্রেসন বলে কিছু নেই। ২৫ বছরের উর্ধ্বে যাঁরা তাঁদের ক্ষেত্রে এমনটা হতে পারে।”

কখনওই মেনে নিতে পারতেন না যে তিনি ডিপ্রেসনের শিকার, ডিসঅর্ডারে ভুগছেন। বলেন, “আমার সঙ্গে কী ঘটছে, সেই বাস্তবটা জানার পরেও নিজেকে মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিতাম, মাথা নেড়ে সকলের কাছে বলতাম ঠিক আছি। এ ভাবেই মিথ্যা বলতে হয়েছে তাঁদেরও।”

আর কোনও রাখঢাক নয়, গত সাড়ে চার বছর ধরে যে পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে তাঁকে যেতে হয়েছে, এ বার বুঝে নিতে চাইছেন ঠিক কী অসুস্থতা রয়েছে তাঁর মধ্যে। কোনও ভয় নয়, লজ্জা নয়, তিনি ঠিক কী ধরনের অসুস্থতার শিকার সেটা এ বার বুঝে নিতেই হবে বলে জানান জাইরা।

এ বার তিনি সামাজিক জীবন, কাজ, স্কুল এবং সোশ্যাল মিডিয়া থেকে সম্পূর্ণ ব্রেক নিতে চাইছেন। রমজানের মাসেই এর একটা হেস্তনেস্ত চাইছেন নায়িকা। বুঝে নিতে চাইছেন কী হয়েছেন তাঁর। বলেন, “আমার জন্য প্রার্থনা করুন আপনারা সবাই।”