আজ সোমবার বিকাল ৩:৩৭, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ১০ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা মুহাররম, ১৪৩৯ হিজরী

ব্যাটসম্যানদের প্রতিরোধ গড়ার আহ্বান জানালেন সাকিব

নিউজ ডেস্ক | বার্তা বাজার .কম
আপডেট : মার্চ ১১, ২০১৭ , ১০:১২ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : খেলাধুলা
পোস্টটি শেয়ার করুন

এর আগের টেস্ট ম্যাচগুলোর মতো গল টেস্টেও নিজেদের প্রথম ইনিংসে উইকেট বিলিয়ে দিয়ে এসেছে বাংলাদেশ। এই কাজের পুনরাবৃত্তি যেন কাটছেই না। আর সেই কারণেই টেস্টের চতুর্থ দিনশেষে সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রতিনিধি হয়ে আসা সাকিব আল হাসানের কণ্ঠে সেই আক্ষেপই ফুটে উঠলো।

প্রথম ইনিংসে লঙ্কানদের ৪৯৪ রানের জবাবে ৩১২ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। স্কোরটা আরও বাড়াতে পারলে হয়তো সুবিধাজনক অবস্থানে থাকতে পারতো সাকিব-মুশফিকরা। সেটি মনে করছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব নিজেও। আর সেটি করতে না পেরে বেশ হতাশও তিনি।   সাকিব বলেন,

‘অবশ্যই আমরা হতাশ। উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য ছিল খুব ভালো। আমাদের উচিত ছিল আরও ১০০-১৫০ রান বেশি করা। আমরা যারা উইকেটে থিতু হয়েছিলাম, তারা বড় স্কোর গড়তে পারিনি। টেস্টে কেউ সেট হলে ১০০-১৫০ রান করা উচিত। এই জায়গায় আমাদের ঘাটতি ছিল।’

লঙ্কান স্পিনার লক্ষ্মণ সান্দাকানকে যেনো খেলতেই পারছিলো না টাইগারেরা। এমনকি সান্দাকানের করা অন্যতম বাজে বলে উইকেট বিলিয়ে এসেছেন স্বয়ং সাকিবই। তবে তার প্রসঙ্গ উঠলে সাকিব অবশ্য বললেন ভিন্নকথা।

‘সান্দাকান ভালো বল করেছে। অবশ্যই ওর অ্যাকশন একটু ভিন্ন। নেটে বা ম্যাচে চায়নাম্যান বোলার আমরা খুব একটা খেলার সুযোগ পাই না। কিন্তু তাকে পড়তে আমাদের কারও সমস্যা হয়েছে বলে মনে হয়নি। সে ভালো জায়গায় বল করেছে। সেই কৃতিত্ব ওকে দিতে হবে। তবে আমরা ওকে ভালোই সামলেছি।’

বৃষ্টি বাঁধা দেয়ার এই টেস্টে প্রথম ইনিংসে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৮২ রানের লিড গুণেছে টাইগারেরা। আর চতুর্থ দিন শেষে ৩৯০ রানে পিছিয়ে বাংলাদেশ। তবে বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার বিশ্বাস করেন, দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে ভালো করবে টাইগারেরা।

‘আরও একটি ইনিংস আছে আমাদের। এখনও ব্যাটিংয়ের জন্য উইকেট বেশ ভালো মনে হচ্ছে। যদি নিজেদের মত খেলতে পারি, আমরা রান করতে পারব।’

তবে এই ক্ষেত্রে নিজেদের প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। একইসাথে জানালেন দীর্ঘক্ষণ ব্যাটিং করেই এই ‘প্রতিরোধ’ সম্ভব করতে পারেন তারা।

‘নতুন দিন তো অনেক রকমই হতে পারে। সবার চেষ্টা থাকবে দলের প্রয়োজনে যেন ঠিক কাজটা করতে পারে। প্রতিটা ব্যাটসম্যানই যখন উইকেটে যাবে, চেষ্টা করবে বেশিক্ষণ ব্যাটিং করার এবং রানও করার। রান বেশি করলে আত্মবিশ্বাস বাড়ে। শুধু প্রতিরোধ গড়লেই হবে না, আবার শুধু মারলেও হবে না। সঠিক সময়ে সঠিক কাজ করতে হবে। সবকিছুর একটা ভারসাম্য রাখতে হবে।’

তবে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে এখন পর্যন্ত কোনো ক্ষতি হতে দেননি ওপেনার তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার। এই কারণে দুই সতীর্থদের প্রশংসা করতে ভোলেননি সাকিব।

‘আজকে সৌম্য যখন ব্যাটিং করেছে, কোনো বাজে শট খেলেনি। সেই সঙ্গে স্ট্রাইক রেটও ভালো রেখেছে। তামিম ভালো ব্যাটিং করেছে। ও হয়তো খারাপ বল পায়নি, তাই খুব বেশি রান করতে পারেনি।’

ম্যাচ বাঁচাতে হলে তামিম -সৌম্যদেরকেই হাল ধরতে হবে বলে মনে করেন সাকিব। আর পরবর্তীতে বাকি ব্যাটসম্যানদেরও ভালো করতে হবে। সাকিব বলছেন,  ‘দুই জনই যদি কালকে এর পুনরাবৃত্তি করতে পারে কিংবা পরের ব্যাটসম্যানরা ভালো করতে পারে, তাহলে ম্যাচ বাঁচানো সম্ভব’।

এক্ষেত্রে ঝুঁকি না নিয়ে তামিম- সৌম্যদের বাজে বলগুলো কাজে লাগানোরও পরামর্শ দিলেন সাকিব। পাশাপাশি নিজেদের খেলায় পরিবর্তন আনার দরকার নেই বলেও মনে করছেন তিনি। এই প্রসঙ্গে তাঁর বক্তব্য,

এর আগে টেস্টের প্রথম ইনিংসে লাঞ্চের আগে সৌম্য, সাকিব, মাহমুদউল্লাহ ও লিটন দাসের উইকেট হারিয়েছিল বাংলাদেশ। তবে এবার প্রথম সেশনটি উইকেটশুন্য কাটাতে চান সাকিব।

‘প্রথম সেশনটা গুরুত্বপূর্ণ। ওরা দুইজন যদি পুরোটা খেলতে পারে, তাহলে তো কোনো কথাই নেই। আমরা চাইবো, ওরা যতক্ষণ পারে ব্যাটিং করুক। তাহলে অবশ্যই পরের ব্যাটসম্যানদের জন্য কাজটা সহজ হয়ে যাবে।’

প্রথম ইনিংসে ১১৮ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়ার পর ধারাবাহিক ব্যাটিং ব্যর্থতার মুখে পড়ে বাংলাদেশ। এবারও যাতে সেই পরিস্থিতি না হয় সেদিকটি মনে করিয়ে দিলেন সাকিব। বললেন,

‘শুধু ভালো শুরু পেলেই হবে না। পুরোটা সময় মনসংযোগ ঠিক রাখতে হবে। সবাইকে যার যার কাজটা করতে হবে। এমন একটা পরিস্থিতিতে দলের সবাইকেই কঠোর পরিশ্রম করতে হবে।’