আজ শনিবার সকাল ১১:৫৫, ২৫শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং, ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৬ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী

নিবন্ধনের ৩ বছর পেরিয়ে গেলেও হয়নি রুয়েটে সুবর্ণজয়ন্তী উৎসব

নিউজ ডেস্ক | বার্তা বাজার .কম
আপডেট : অক্টোবর ১৯, ২০১৭ , ২:৫৪ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : রাজশাহী
পোস্টটি শেয়ার করুন

রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) সুবর্র্ণজয়ন্তী উৎসবের জন্য নিবন্ধন শুরু হয় ২০১৪ সালের জানুয়ারিতে। ওই বছরের নভেম্বরেই এই উৎসব অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে এখনও অনুষ্ঠানের আয়োজন করা সম্ভব হচ্ছে না বলে অভিযোগ নিবন্ধিত শিক্ষার্থীদের। তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের দাবি- প্রধান অতিথি হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর আসার দিনক্ষণ ঠিক না হওয়ায় থমকে আছে উৎসব আয়োজন প্রক্রিয়া।

রুয়েটের রেজিস্ট্রার দফতর সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালের জানুয়ারি মাস থেকে অনুষ্ঠানের রেজিস্ট্রেশন শুরু হয়। অনুষ্ঠানে রুয়েটের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে (প্রাক্তন রাজশাহী ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ ও বিআইটি) অদ্যবধি সকল প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী নিবন্ধনের সুযোগ পান। বর্তমান শিক্ষার্থীদের জন্য নিবন্ধন ফি ছিল ৫০০ টাকা এবং প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের ছিল ১৫০০ টাকা। নিবন্ধন প্রক্রিয়া শেষে নভেম্বর মাসে উৎসব আয়োজনের প্রাথমিকভাবে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তবে নিবন্ধনের প্রায় তিন বছর পেরিয়ে গেলেও অনুষ্ঠান আয়োজনের অগ্রগতি নিয়ে কোনও নতুন তথ্য জানাতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

অনুষ্ঠান আয়োজন কমিটি সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীদের দাবির প্রেক্ষিতে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপস্থিত থাকতে অনুরোধ জানায় রুয়েট কর্তৃপক্ষ। প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে তার উপস্থিত থাকার লিখিত সম্মতিও জানানো হয়। কিন্তু ওই সময় দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে আসতে অসম্মতি জানান। এরপর প্রধানমন্ত্রীর সাথে কয়েকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি আসার জন্য কোন তারিখ দেননি। তখন থেকেই অনুষ্ঠান আয়োজনের প্রক্রিয়া থমকে আছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আয়োজন কমিটিতে থাকা এক শিক্ষক জানান, ‘চলতি বছরের জুন মাসে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) বাৎসরিক সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রুয়েট উপাচার্য অধ্যাপক রফিকুল আলম বেগের কাছে অনুষ্ঠানে উপস্থিত হওয়ার জন্য মৌখিকভাবে সম্মতি জানান। এরপর রুয়েট কর্তৃপক্ষ প্রধানমন্ত্রীর সাথে যোগাযোগ করলেও এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কোন অগ্রগতি নেই।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী আতিফ মোস্তফা বলেন, ‘নিবন্ধনের এতদিনেও অনুষ্ঠানটি না হওয়ায় আমি খুবই হতাশ। আদৌ হবে কিনা তা নিয়ে আমি সন্দিহান। চাকরি করি, অফিসসহ নানান ব্যস্ততা আছে। এখন হলে যেতে পারবো কিনা তা নিয়েও সংশয় রয়েছে।’

ইলেক্ট্রিকেল অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী আহসান উল্লাহ বলেন, ‘অনুষ্ঠান নিয়ে অনেক পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু এখনও অনুষ্ঠান হয়নি। আমার মনে হয় কর্তৃপক্ষ অবহেলা করছে।’

জানতে চাইলে উপাচার্য অধ্যাপক ড. রফিকুল আলম বেগ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সাবেক শিক্ষার্থীরা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীকে প্রধান অতিথি হিসাবে চাওয়ায় আমরা প্রধানমন্ত্রীকে আসতে অনুরোধ করি। তিনি না আসায় উৎসব থেমে আছে। তবে আমরা চেষ্টা করছি। দ্রুতই এ সমস্যার সমাধান হবে।’