আজ শুক্রবার রাত ৪:০৫, ২৪শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং, ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী

টানটান উত্তেজনায় বিকেলে ফিরছেন খালেদা জিয়া

নিউজ ডেস্ক | বার্তা বাজার .কম
আপডেট : অক্টোবর ১৮, ২০১৭ , ৯:৪৭ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে তিনটি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা রয়েছে। লন্ডন থেকে ফিরার পরই কি গ্রেফতার হতে পারেন তিনি নাকি হবেননা এনিয়ে টানটান উত্তেজনা চলছে।

লন্ডনে চিকিৎসা ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সময় কাটিয়ে তিন মাস তিন দিন পর আজ বিকেলে দেশে ফিরছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সাবেক প্রধানমন্ত্রী এমন এক সময়ে দেশে ফিরছেন যখন ।

বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ের গণমাধ্যম শাখার কর্মকর্তা শাইরুল কবির খান জানিয়েছেন, বুধবার বিকেলে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছাবেন খালেদা জিয়া। দলীয় উর্ধ্বতন নেতাকর্মীরা সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে বিমানবন্দরে স্বাগত জানাবেন।

বাসে পেট্রলবোমা হামলার মামলায় গত ৯ অক্টোবর বিএনপির চেয়ারপারসনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন কুমিল্লার জেলা ও দায়রা জজ জেসমিন বেগম। এ ছাড়া ১২ অক্টোবর সাবেক প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ঢাকায় দুটি আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। মানহানির মামলায় ঢাকা মহানগর হাকিম নূর নবী এবং জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিশেষ আদালতের বিচারক ড. আক্তারুজ্জামান এ দুটি পরোয়ানা জারি করেন।

বিএনপি মনে করে, রাজনৈতিক কারণেই খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে এই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। অপরদিকে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এ ব্যাপারে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গতকাল মঙ্গলবার বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, ‘খালেদা জিয়া দেশে আসবেন। উনার কিছুই হবে না। তাঁকে গ্রেপ্তার করে সরকার এই ভুল করবে না। আমরা মনে করি রাজনৈতিক প্রভাবে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে এই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ইস্যু করা হয়েছে। ’

‘সবাই জানে এমনকি আদালতও অবগত রয়েছেন যে খালেদা জিয়া চিকিৎসার জন্য বিদেশে গেছেন। খালেদা জিয়া আদালত ও আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল বলেই চিকিৎসার কিছুটা অংশ বাদ দিয়েই দেশে চলে আসছেন’, যোগ করেন মওদুদ।

অপরদিকে একইদিন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দেশে ফিরলে আইন অনুযায়ী তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা আছে। গ্রেপ্তারি পরোয়ানাটা আমাদের কাছে এসে যখন পৌঁছে যাবে, তখন আমরা আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব। ’

আর পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) শহীদুল হক বলেছেন, ‘পুলিশের কাছে, থানায় এখনো আমরা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা পাইনি। আদালতে হয়তো ফাইল ইস্যু হয়েছে। এইগুলো কোর্টের মাধ্যমে থানায় আসতে হবে। গ্রেপ্তারি পরোয়ানা আসার সাথে সাথেই যে একজনকে গ্রেপ্তার করতে হবে সেটা আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি না। খালেদা জিয়া দেশের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। কাজেই অত্যন্ত দায়িত্বশীল। আমরা কখনোই পুলিশ দিয়ে তাঁকে গ্রেপ্তার করে কোর্টে নিয়ে যাব, আমি মনে করি এটার প্রয়োজন হবে না।

গত ১৫ জুলাই চিকিৎসার জন্য লন্ডনে যান সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। সেখানে তিনি পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আছেন। বড় ছেলে ও দলের জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান আগে থেকেই লন্ডনে অবস্থান করছেন।