২০, নভেম্বর, ২০১৮, মঙ্গলবার | | ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

আর্জেন্টিনার দলে নেই মেসি! কিন্তু কেন?

আপডেট: আগস্ট ২০, ২০১৮

আর্জেন্টিনার দলে নেই মেসি! কিন্তু কেন?

আসছে মাসে মার্কিন মুলুকে গুয়াতেমালা ও কলম্বিয়ার বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচ খেলবে আর্জেন্টিনা। ইতোমধ্যে সেজন্য ২৯ সদস্যের দল ঘোষণা করেছেন অন্তর্বর্তীকালীন কোচ লিওনেল স্কালোনি। তবে তাতে রাখা হয়নি লিওনেল মেসিকে।

তবে, এখন প্রশ্ন উঠছে, কেন দলে রাখা হয়নি এই ছোট ম্যাজিসিয়ানকে? এছাড়া উঠেছে নানান আলোচনা-সমালোচনা।

সর্বশেষ এ নিয়ে মুখ খুললেন আর্জেন্টিনার কোচ লিওনেল স্কালোনি। তিনি বলেন, মেসিকে নিয়ে আমাদের পরিকল্পনা একটু আলাদা। দীর্ঘদিন ধরে একা কাঁধে সে জাতীয় দলের ভার বহন করে বেড়াচ্ছে। তাকে আমরা পর্যাপ্ত বিশ্রামের সুযোগ দেব। তার এখন কম দৌড়ঝাঁপ করা উচিত। তাই কেবল ক্লাবের হয়ে খেলা চালিয়ে গেলেই হবে। জাতীয় দলের হয়ে প্রীতি ম্যাচ খেলতে এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত ছোটাছুটির দরকার নেই।

আগামী মাসে যুক্তরাষ্ট্রে হতে যাওয়া আর্জেন্টিনার দুটি প্রীতি ম্যাচে লিওনেল মেসি খেলবেন না বলে আগেই আভাস পাওয়া গিয়েছিল। সঙ্গে গনসালো হিগুয়াইন, সের্হিও আগুয়েরো ও আনহেল দি মারিয়াকেও দলে রাখেননি কোচ লিওনেল স্কালোনি।

আগামী ৭ সেপ্টেম্বর লস অ্যাঞ্জেলেসে গুয়াতেমালা এবং চার দিন পর নিউ জার্সিতে কলম্বিয়ার বিপক্ষে খেলবে আর্জেন্টিনা। এই দুই ম্যাচের জন্য শুক্রবার ২৯ সদস্যের দল ঘোষণা করেন অন্তবর্তীকালীন কোচ।

দলে ব্যাপক রদবদল এনেছেন স্কালোনি। রাশিয়া বিশ্বকাপের দলে থাকা ২৩ সদস্যের মধ্যে মাত্র নয় জন আছেন এবারের দলে। গত মৌসুমে ক্লাবের হয়ে দারুণ সময় কাটানোর পরও বিশ্বকাপ দলে জায়গা না পাওয়া মাউরো ইকার্দি দলে ফিরেছেন।

ডাক পেয়েছেন ইতালির সেরি আয় খেলা দুই স্ট্রাইকার ইন্টার মিলানের লাউতারো মার্তিনেস ও স্পেনে জন্ম নেওয়া ফিওরেন্তিনার জিওভান্নি সিমেওনে। নতুন মুখদের মধ্যে আরেক জন উল্লেখযোগ্য হলেন সেভিয়ার মিডফিল্ডার ফ্রাঙ্কো মার্তিনেস। ২০১৫ সালে ইতালির হয়ে দুটি প্রীতি ম্যাচ খেলেছিলেন তিনি।

রাশিয়ায় হতাশাজনক পারফরম্যান্সের পর আসছে দুই প্রীতি ম্যাচ দিয়েই ঘুরে দাঁড়ানোর পথে যাত্রা করবে আর্জেন্টিনা। বিশ্বকাপে কোনোমতে গ্রুপ পর্ব পার হওয়ার পর শেষ ষোলোয় ফ্রান্সের কাছে ৪-৩ গোলে হেরে ছিটকে যায় দুবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

আর্জেন্টিনা দল:

গোলরক্ষক: ফ্রাঙ্কো আরমানি (রিভার প্লেট), হেরোনিমো রুলি (রিয়াল সোসিয়েদাদ), সের্হিও রোমেরো (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড)

ডিফেন্ডার: ফাব্রিসিও বুস্তোস (ইন্দেপেনদিয়েন্তে) গাব্রিয়েল মের্কাদো (সেভিয়া), হের্মান পেস্সেইয়া (ফিওরেন্তিনা), রামিরো ফুনেস মোরি (ভিয়ারিয়াল), আলান ফ্রাঙ্কো (ইন্দেপেনদিয়েন্তে), নিকোলাস তাগলিয়াফিকো (আয়াক্স), ওয়াল্তার কান্নেমান (গ্রেমিও), লেওনেল দি প্লাসিদো (লানুস), এদুয়ার্দো সালভিও (বেনফিকা), মার্কোস আকুনা (স্পোর্তিং লিসবন)

মিডফিল্ডার: লেয়ান্দ্রো পারেদেস (জেনিত), সান্তিয়াগো আসকাসিবার (স্টুটগার্ট), রদ্রিগো বাত্তাগলিয়া (স্পোর্তিং লিসবন), গনসালো মার্তিনেস (রিভার প্লেট), জিওভানি লো সেলসো (পিএসজি), ফ্রাঙ্কো সেরভি (বেনফিকা), মাক্সি মেসা (ইন্দেপেনদিয়েন্তে), মাতিয়াস ভার্গাস (ভেলেস), ফ্রাঙ্কো ভাসকেস (সেভিয়া), এক্সেকুয়েল পালাসিওস (রিভার প্লেট)

ফরোয়ার্ড: আনহেল কোররেয়া (আতলেতিকো মাদ্রিদ), লাউতারো মার্তিনেস (ইন্টার মিলান), মাউরো ইকার্দি (ইন্টার মিলান), জিওভান্নি সিমেওনে (ফিওরেন্তিনা), ক্রিস্তিয়ান পাভোন (বোকা জুনিয়র্স), পাওলো দিবালা (ইউভেন্তুস)।