আজ সোমবার সকাল ৮:৪২, ২১শে আগস্ট, ২০১৭ ইং, ৬ই ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৮শে জিলক্বদ, ১৪৩৮ হিজরী

পতিতালয় চালিয়ে কোটিপতি!

নিউজ ডেস্ক | বার্তা বাজার .কম
আপডেট : মার্চ ১০, ২০১৭ , ১২:২৮ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : বিচিত্র সংবাদ
পোস্টটি শেয়ার করুন

২০ বছর ধরে প্রায় ৫ হাজার নারীকে পাচার করেছে তারা। যা থেকে আয়ের পরিমাণ কয়েক কোটি টাকা। এমনকি, জোর করে নারীদের যৌনপেশায় নামানোর অভিযোগ উঠেছে দিল্লির এক দম্পতির বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত দম্পতিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এর আগেও অবশ্য বেশ কয়েকবার একই অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়েছে আফাক হোসেন (৫০) ও সাইরা বেগম (৪৫) নামে এই দম্পতি।

পুলিশের ধারণা, দিল্লির রেড লাইট এলাকা জিবি রোডে মেয়ে পাচারের মূলপাণ্ডা ছিল আফাক ও সায়রা হোসেন। এদের বিরুদ্ধে কঠোর ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। যাতে এবার আর সহজে জামিন না পায় দম্পতি।

দম্পতির বিরুদ্ধে বেআইনিভাবে ৩টি পতিতালয় চালানোর অভিযোগও উঠেছে। এই ঘটনায় তাদের ৫ সাগরেদকেও গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

পুলিশের সন্দেহ, নেপাল, পশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খণ্ড এবং অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে মেয়ে এনে জোর করে যৌনপেশায় নামায় এই দম্পতি। কোনও মেয়ে রাজি না হলে টানেলের মতো একটি ঘরে রেখে পশুর মত আচরণ করা হয় তাদের সঙ্গে।

ইতোপূর্বে আফাক ও সারিয়াকে গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ। কিন্তু, এদেশে নারী পাচার নিয়ে জোরালো আইন না থাকায় সহজেই জামিন পেয়ে যায় তারা।

পুলিশ তাদের ডেরায় তল্লাশি চালানোর সময় ৯ লাখ টাকা ও বেশ কয়েকটি নামীদামি গাড়ি পায়। জানা গেছে, বেঙ্গালুরুর সম্পত্তি বিক্রি করে সম্প্রতি দিল্লিতে একটি ফার্ম হাউজ় কেনে ওই দম্পতি।

পুলিশ আরও জানিয়েছে, ৫০ থেকে দু’লাখ টাকা দাম দিয়ে মেয়েদের কেনা হত। দম্পতির কোটি টাকার ব্যাংক ব্যালেন্সের হদিশও পেয়েছে পুলিশ।

আফাকের স্ত্রী সায়রাও আগে যৌনকর্মী ছিলেন। এক পতিতালয়ে আফাকের সঙ্গে দেখা হয় তার। ১৯৯৯ সালে বিয়ে করে তারা।