১৫, আগস্ট, ২০১৮, বুধবার | | ৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৩৯

কোটা আন্দোলনকারীদের সুখবর দিলেন কাদের

আপডেট: আগস্ট ১২, ২০১৮

কোটা আন্দোলনকারীদের সুখবর দিলেন কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর কন্যা। ধমক দিয়ে তাঁর কাছ থেকে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের দাবি আদায় হবে না। আলটিমেটাম দিয়ে শেখ হাসিনার কাছ থেকে সুবিধা আদায় করা যাবে না।

রবিবার বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) মিলনায়তনে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ)’র উদ্যোগে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

কোটা আন্দোলনকারীদের সুখবর দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, কোটা আন্দোলন যাঁরা করেন, তাঁদের আমি সুখবর দিতে চাই। কিছুদিন ধৈর্য ধরতে অসুবিধা কী? একটি ব্যালেন্স সিস্টেম চালু করার জন্য কিছুটা সময় লাগছে। তথ্য, উপাত্ত সংগ্রহের জন্য কিছুটা সময় লাগছে। এটি এখন অনেক দূর এগিয়েছে। আমরাও সমাধানের পথ খুঁজছি। ছাত্রছাত্রীদের হতাশ হওয়ার কোনো কারণ নেই।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনার ওপর আস্থা রাখুন। কিশোর-কিশোরী, ছাত্রছাত্রী তাদের নয় দফা দাবি সরকার মেনে নিয়েছে। আজও একটি আন্ডারপাসের উদ্বোধন হয়েছে। সড়ক পরিবহন আইন পাসের পথে। অধৈর্য হবেন না, অপেক্ষা করুন। সমাধান হবে।

১৫ আগস্ট বিএনপি ও বেগম জিয়া ভুয়া জন্মদিন পালন থেকে মোটেই সরছে না। তাহলে তাদের সঙ্গে কি করে সংলাপ হতে পারে? বলে মন্তব্য করেন সেতুমন্ত্রী।

কাদের বলেন, বিএনপির রাজনীতি হচ্ছে সংঘাতের রাজনীতি। তারা ক্ষমতায় থাকাকালীন ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলা করা হয়েছে। মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করেছে। যাদের রাজনীতি এত নির্মম তাদের সঙ্গে কি রাজনীতিতে ওয়ার্কিং আন্ডারস্ট্যাডিং করার সুযোগ আছে?

‘কটু কথা, কটু ভাষণ’ বিএনপি’র রাজনৈতিক ভূষণ দাবি করে তিনি বলেন, ২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংলাপে বসার জন্য বিএনপি নেত্রীকে টেলিফোন করে ছিলেন। তিনি কি অশালীন ভাষায় কথা বলেছেন, এটা দেশের জনগণ জানে।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সেলানের সভাপতিত্বে সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য অধ্যাপক ডা. আ ফ ম রুহুল হক, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম, আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যাবিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, আয়োজক সংগঠনের মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এম এ আজিজ প্রমুখ।