১৮, অক্টোবর, ২০১৮, বৃহস্পতিবার | | ৭ সফর ১৪৪০

জর্জিনাকে পছন্দ করেন না রোনালদোর মা!

আপডেট: আগস্ট ১২, ২০১৮

জর্জিনাকে পছন্দ করেন না রোনালদোর মা!

ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর জীবনে বান্ধবীদের আনাগোনা নতুন নয়। পর্তুগিজ এই মহাতারকার প্রেমের তরী ভিড়েছে বিভিন্ন ঘাটে। তবে ডজন খানেকেরও বেশি নারীর সঙ্গে প্রেমের পর জর্জিনা রদ্রিগেজের বাহুডোরেই থিতু হয়েছেন রোনালদো। ২০১৬ সালের নভেম্বর থেকে শুরু, সেই থেকে এখনও চলছে তাদের প্রেমের দারুণ রসায়ন।

জর্জিনার সঙ্গে রোনালদোর এখনো বিয়ে না হলেও তাদের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। গত বছরের নভেম্বরে রোনালদোর ঘর আলোকিত করে আসে চতুর্থ সন্তান। রোনালদোর বাকি তিন সন্তান, বোন-মা সবার সঙ্গেই বেশ ভালো সম্পর্ক ছিল জর্জিনার। এমনকি রাশিয়া বিশ্বকাপের আগে জোর গুঞ্জন ছিল, বিশ্বকাপ শেষেই বিয়ের পিঁড়িতে বসবে এই জুটি।

তবে আদৌ কী বিয়ের পিঁড়িতে বসতে পারবেন রোনালদো-জর্জিনা? হুট করেই এমন প্রশ্ন ওঠার কারণ অবশ্য রয়েছে। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম মার্কার দাবি, ছেলের দীর্ঘদিনের প্রেমিকা জর্জিনার সঙ্গে বর্তমানে সম্পর্কটা মোটেও ভালো যাচ্ছে না রোনালদোর মা মারিয়া দলোরেস দস সান্তোস অ্যাভেইরোর।

যার প্রমাণ পাওয়া যায়, সম্প্রতি ইনস্টাগ্রামের একটি পোস্ট থেকে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইনস্টাগ্রামে রোনালদোর পরিবারের একটি ছবি পোস্ট করা হয়েছিল। সেখানে একজন মন্তব্য করেছিলেন, ‘দলোরেস আবার ছেলের পাশে গিয়ে দাঁড়াও। তোমার ছেলের রাজত্ব জর্জিনাকে দখল করতে দিয়ো না।’

এমন মন্তব্য চোখ এড়ায়নি সদ্য জুভেন্টাসে নাম লেখানো রোনালদোর মায়েরও। অবশ্য শুধু দেখাই নয়, দলোরেস সেই কমেন্টে একটি লাইকও দিয়েছেন। আর তাতেই গুঞ্জন ওঠে যায়, জর্জিনাকে আর পছন্দ করছেন না মা দলোরেস। কিছুক্ষণ পরই অবশ্য সেই কমেন্ট থেকে লাইক উঠিয়ে নেন দলোরেস।

অবশ্য তাতেও থামছে না রোনালদোর পরিবারে অশান্তির গুঞ্জন। কেউ কেউ বলছেন, রোনালদোর পরিবারেও শুরু হয়ে গেছে অশান্তি, চলছে বউ-শাশুড়ির যুদ্ধ! অনেকেই আবার সেই কমেন্টে জর্জিনার পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। তারা লিখছেন, ‘অবশ্যই জর্জিনার আরও সম্মান পাওয়া উচিত।’

মায়ের পছন্দই যে রোনালদোর সর্বশেষ কথা – তার প্রমাণ পাওয়া গিয়েছিল আগেই। ইরিনা শায়েকের সঙ্গে পর্তুগিজ যুবরাজের দীর্ঘ পাঁচ বছরের সম্পর্ক শেষ হয়ে গিয়েছিল শুধু রোনালদোর মায়ের অপছন্দের কারণেই। দলোরেসের ৬০তম জন্মদিনে উপস্থিত ছিলেন না ইরিনা। আর তাতেই চুকে যায় তাদের সম্পর্ক। তবে কী একই পরিণতি ঘটতে চলেছে জর্জিনার ভাগ্যেও? উত্তরটা সময়ই বলে দিবে।

সূত্র: মার্কা