১৮, অক্টোবর, ২০১৮, বৃহস্পতিবার | | ৭ সফর ১৪৪০

ফজিলাতুন্নেছা মুজিবকে বাংলার মানুষ কখনও ভুলবে না : স্পিকার

আপডেট: আগস্ট ৮, ২০১৮

ফজিলাতুন্নেছা মুজিবকে বাংলার মানুষ কখনও ভুলবে না : স্পিকার

বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব সকল নারীর জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবে বলে জানিয়েছেন, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ডঃ শিরীন শারমিন চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‘তার জীবন থেকে শিক্ষা নিয়ে আমাদের নারীদের সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে।’

বুধবার (৮ আগস্ট) সকাল ১১ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে উইমেন জার্নালিস্ট নেটওয়ার্ক বাংলাদেশ (ডব্লিউজেএনবি) এর আয়োজনে বঙ্গমাতার ৮৮ তম জন্মবার্ষিকীতে “বাঙালির মুক্তির সংগ্রামে ফজিলাতুন্নেছা মুজিব” শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ এসব কথা বলেন।

স্পিকার বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সংগ্রামী জীবনের প্রেরণার উৎস ছিলেন একমাত্র ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। তার কারণে বঙ্গবন্ধু আজ শ্রেষ্ঠ বাঙালি হয়ে উঠেছেন। ফজিলাতুন্নেছার রাজনৈতিক দূরদর্শিতা ছিল অতুলনীয়। তিনি সবসময়ই বঙ্গবন্ধুর পাশে থেকে রাজনৈতিক পরামর্শ দিতেন।’

শিরীন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে যখন প্যারোলে মুক্তি দেয়ার কথা হয় তখন তিনি বাঁধা দেন। তিনি বলেন, আপনাকে নিঃশর্ত মুক্তি না দিলে আপনি প্যারোলে মুক্তি নিবেন না।’

তিনি বলেন, স্বাধীনতার নেপথ্য হিসেবে সাহস যুগিয়েছেন ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। তিনি দেশের স্বাধীনতা এবং বঙ্গবন্ধুর সাথে ওতোপ্রোতভাবে জড়িত। তাই ইতিহাস থেকে তাকে সরিয়ে ফেলার কোন সুযোগ নেই।’

তিনি আরো বলেন, ‘তিনি আমাদের নারীদের প্রেরণার উৎস। বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবন জাতির সামনে তুলে ধরার পাশাপাশি মুজিবের সংগ্রামী জীবনও আমাদেরকে জাতির কাছে তুলে ধরতে হবে।’

স্পিকার বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু যখন পাকিস্তানের কারাগারে বন্দী তখন ফজিলাতুন্নেছা মুজিব শিশু সন্তানদের নিয়ে যেমন সংসারকে নিয়ন্ত্রণ করেছেন। তেমন দলীয় নেতাকর্মীদের সুসংগঠিত করতে তিনি ভূমিকা রাখেন। তিনি জেলে বঙ্গবন্ধুকে কাগজ দিয়ে আসতেন তার স্মৃতি লিখে রাখার জন্য।’

জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন এর সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন শাহনাজ, সংসদ সদস্য ফজিলাতুন্নেছা বাপ্পি, সাবেক বাসসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়া, বাসসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কালাম আজাদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ডঃ গোলাম রহমান প্রমুখ।