১৯, আগস্ট, ২০১৮, রোববার | | ৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৩৯

সড়ক আন্দোলন এবং বিএনপির খোয়াব

আপডেট: আগস্ট ৭, ২০১৮

সড়ক আন্দোলন এবং বিএনপির খোয়াব

মানুষ দু’ভাবে স্বপ্ন দেখে, জেগে এবং ঘুমিয়ে। জেগে দেখা স্বপ্নে থাকে জীবনের নানা ছক, আর ঘুমের স্বপ্ন হাওয়ায় মিলায়। আজ সকালে চায়ে চুমুক দিতেই রাতের স্বপ্নটি খুঁজলাম। কিন্তু খুবই আবছা যেন এলবামে রাখা বহু পুরনো রঙচটা ছবি, অস্পষ্ট, ঝাপসা। যাকগে, স্বপ্ন স্বপ্নই, মনে না পড়লে ক্ষতি নাই। এছাড়া বাস্তবে এত সব ঘটে চলেছে যে, এগুলো মনে রাখাই কষ্টকর। নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাজপথ উত্তাল, চরম যানবাহন সংকট। এরই মাঝে বিএনপি খোয়াব দেখছে ‘সরকার পতন হলো বলে’। আহা! ক্ষমতা!

মন্দ কি, যে কোন ভাবে আওয়ামী লীগ ক্ষমতাচ্যুত হলে জনগনের সামনে second choice তো বিএনপিই। অতএব, বিএনপি ক্ষমতায় যাবার স্বপ্ন বুনতেই পারে। স্বপ্ন মানে তো পরিকল্পনা, আর রাজনৈতিক দলের তো পরিকল্পনা থাকেই। ১৯৭৫ সালের বিয়োগান্ত ঘটনার পর থেকে স্বপ্নমাফিক এগিয়েছে বিএনপি। মেজর জিয়া বাংলার মসনদে বসার স্বপ্ন দেখেছিল এবং বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের মাধ্যমে তার সে স্বপ্নের রূপায়ন ঘটে। এরপর একে একে সব স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয় ছকে আঁকা নকশা অনুযায়ী। একে একে মুছে যায় বঙ্গবন্ধুর নাম, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, জয়বাংলা শ্লোগান এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী বনেদী রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের নাম। হাজার বছরকার বাঙালী ভাবধারা আবারো পাকিস্তানি কায়দায় ফিরে যায়, ধীরেধীরে রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠা পায় চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধী ও রাজাকাররা। এভাবেই বাস্তবায়ন হয় মেজর জিয়া তথা বিএনপির খোয়াব।

বিএনপি এমন এক পয়মন্ত রাজনৈতিক দল, না চাইতেই পেয়েছে চাওয়ার চাইতে ঢের বেশি। তবে সবকিছুরই শেষ থাকে। ২০০৬ সালে জোর করে ক্ষমতায় থাকার চেষ্টায় অলক্ষী ভর করে বিএনপির কপালে। শনির দশার সেই যে শুরু তা আর কাটানো গেলনা কোন তাবিজ-কবজ কিংবা পানি পড়ায়। ১/১১’র সরকারের আমলে সিনিয়র নেতৃবৃন্দ ও বেগম জিয়ার জেল, তারেক রহমানের রাজনীতি না করার শর্তে বৃটেনে স্বেচ্ছা নির্বাসনে নেতৃত্বশূন্য বিএনপি বাঁচা-মরার লড়াইয়ে খাবি খাচ্ছে সেই থেকেই। কিন্তু ক্ষমতায় যাবার কোন সুযোগ হাতছাড়া করতে নারাজ, তবে নিজেরা মাঠে নেমে আন্দোলন করা বাদে।

বিএনপি রোদ-বৃষ্টি মাথায় নিয়ে আন্দোলন করবে এটি কোন কাজের কথা নয়। ইস্যু অটোমেটিক সৃষ্টি হবে, অন্যেরা মাঠে সংগ্রাম করবে, সেই সংগ্রামে বিএনপি আগুন-পানি-হাওয়া দিবে এবং এতেই সুড়সুড় করে পালাবে আওয়ামী লীগ সরকার। বিএনপি এই স্বপ্নে বিভোর সেই হেফাজতের মতিঝিল আন্দোলন থেকেই। অল্পের জন্য সেটি ফসকে গেলেও আশাহত হয়নি, কোটা আন্দোলনে আবারো স্বপ্নের ডালপালা বিস্তৃত হয়, আহা! এটিও ফসকে গেছে হাত দুয়েক দূর দিয়ে। কিন্তু স্বপ্ন দেখা কি থেমে থাকে, এবার মোক্ষম সুযোগ, কচি বাচ্চাদের ‘সড়ক আন্দোলনে কম্পমান দেশ, টলোমলো সরকারের গদি। এ সুযোগ হেলায় হারানো চলবে না, সওয়ার এবার শিশুদের কাঁধে। নীতি-নৈতিকতা বিসর্জন দিয়ে, শিশু-কিশোরদের রাজনীতির গুটি বানাতে সামান্য দ্বিধা করেনি, ক্ষমতার এই স্বপ্ন আর কি কি পন্থায় বিএনপি দেখে সেটি দেখার অধীর অপেক্ষায় রইলাম।।