আজ সোমবার সকাল ৮:৪৯, ২১শে আগস্ট, ২০১৭ ইং, ৬ই ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৮শে জিলক্বদ, ১৪৩৮ হিজরী

সাকিবের আউট আনলাকি!

নিউজ ডেস্ক | বার্তা বাজার .কম
আপডেট : মার্চ ৯, ২০১৭ , ৭:২২ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : খেলাধুলা
পোস্টটি শেয়ার করুন

ভারতের রবিচন্দ্রন অশ্বিন শীর্ষস্থান হারানোয় আইসিসি টেস্ট অলরাউন্ডারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে এখন চূড়ায় সাকিব আল হাসান। কালই দুবাই থেকে শ্রীলঙ্কায় এ খবর পেয়েছেন সাকিব। দুবাই থেকে শ্রীলঙ্কার দূরত্ব বেশ বড়, ৩৩১৮ কিলোমিটার। দূরদেশ থেকে খবরটি পেলেও সাকিব মনে হয় না খুব বেশি খুশি হয়েছিলেন! খুশি হয়েছিলেন কি না, সে খবর জানা যায়নি। তবে একদিনের ব্যবধানে তার ব্যাটিং দেখে মনে হলো না যে সাকিব খুব খুশি হয়েছেন।

মাঠে পড়ে থাকার কোনো চেষ্টাই করলেন না। মাঠে এলেন, ধুমধাড়াক্কা কিছু শট খেললেন, এরপর আবার ফিরে গেলেন। কেন? সেই উত্তরও নেই। অবশ্য গত চার সিরিজে সাকিব এমন কিছু শট খেলেছেন, যেগুলোতে বিরক্ত হয়েছেন সাকিবভক্তরা্ও! অবশ্য কে কী ভাবছে, তা নিয়ে মোটেও মাথা ঘামান না সাকিব। অহম দেখিয়ে সাকিব তো বলেই দিয়েছেন, ‘আমি তো এভাবেই খেলি। এভাবেই খেলে যাব!’ সাকিবের ধারণা আক্রমণাত্মক কৌশল পাল্টে রক্ষণাত্মক কৌশল বেছে নিলে পাল্টে যাবেন সাকিব! এখন যে রান পাচ্ছেন, তখন ওই রানও পাবেন না।

এতসব কথা উঠছে বৃহস্পতিবার গল টেস্টে সাকিবের আউট হওয়ার ধরন দেখে। দিনের আলো ঠিকমতো ফোঁটার আগেই বাজে শট খেলে আউট সৌম্য সরকার। সাকিবের ওপর তখন মহাদায়িত্ব। দলের ফলোঅন এড়াতে হবে, স্কোর বড় করতে হবে। এর কিছুই সাকিব করলেন না। ১৯ বলে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের রান ২৩। কেন এরকম ব্যাটিং? এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে খুঁজতে আউট সাকিব। চায়নাম্যান সান্দাকানের লেগ স্টাম্পের অনেকটা বাইরের বলে খোঁচা মারতে গিয়ে উইকেটরক্ষক ডিকভেলার হাতে ক্যাচ দেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান।

চায়নাম্যানের গুগলি সাকিবের জন্য দুরূহ হওয়ার কথা না। তবুও আউট সাকিব। ব্যাটিংয়ে সাকিবের ১ চার ও ১ ছক্কায় রান ১৯। ছয়ের মারটিও ছিল ঝুঁকিপূর্ণ। লাকমালের বল পুল করলেন, টপ-এজ হয়ে বল গেল সীমানার বাইরে। অবশ্য চারের মারটি ছিল চোখ ধাঁধানো। কিন্তু ওরকম আউট কেন? সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ দলের প্রতিনিধি হয়ে আসা সৌম্য সরকার জানালেন, সাকিবের আউট আনলাকি! চোখ কপালে ওঠার উপক্রম।

সাকিবের আউট নিয়ে সৌম্যর ব্যাখ্যা, ‘সান্দাকান, চায়নাম্যান বোলার। ও তার উল্টা (গুগলি) করেছে। সাকিব ভাই ওই উল্টা বলটা বুঝতেও পেরেছিল। ফাইন লেগে কোনো খেলোয়াড়ও ছিল না। উনি হয়তো ভেবেছিলেন, বাইরের বল খেলে দুই রান নিই। এই ধরনের বলে আউট হওয়ার সম্ভাবনা খুব কম থাকে। সম্পূর্ণ দুর্ভাগ্যবশত আউট হয়েছেন। হয়তো ব্যাট-বলের স্পর্শ করতে পারেন নাই, পারলে সবার জন্যই ভালো হতো।’

সাকিবের ওই শট অনেকটাই পিছিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশকে। এরপর মাহমুদউল্লাহ, লিটনরা কিছুই করতে পারেননি। সাকিবের পেশাদারিত্বের কি অভাব ছিল? সৌম্য এড়িয়ে গিয়ে বললেন, ‘পেশাদারিত্বের অভাব! উনি তো ভালো বলতে পারেন। টেস্টে সবাই বাজে বলের জন্য অপেক্ষা করে। তিনি হয়তো বাজে বল ভেবেই মারতে গিয়েছিলেন। কিন্তু কানেক্ট করতে পারেননি।’

ভুল শট নির্বাচন করে আউট হওয়া সৌম্য সরকার দিন শেষে সাকিবের হয়ে ভালোই ব্যাট করেছেন। সাকিব, মাহমুদউল্লাহ ও সৌম্যদের বাজে দিনে উজ্জ্বল মুশফিক। সৌম্যও বলছেন, অধিনায়কের থেকে শেখার আছে অনেক কিছু, ‘মুশফিক ভাই আজকে টেস্ট ম্যাচের জন্য উপযুক্ত ব্যাটিং করেছেন। শুরুতে সময় নিয়ে উইকেটে মানিয়ে নিয়েছেন। অন্যরা প্রথম দিকে চার মারলেও তিনি অনেকক্ষণ টিকে একটা চার মেরেছেন। তার কাছ থেকে অনেক কিছু শেখার আছে। উনি অনেক অভিজ্ঞ একজন খেলোয়াড়, আমাদের অধিনায়ক।’ শেখার জন্য সৌম্যর উচিত মুশফিককেই অনুসরণ করা।