আজ শুক্রবার দুপুর ২:৩৯, ২১শে জুলাই, ২০১৭ ইং, ৬ই শ্রাবণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৬শে শাওয়াল, ১৪৩৮ হিজরী

বাংলাদেশ ভারতের মধ্যকার শেষ পাঁচটি ওয়ানডে

নিউজ ডেস্ক | বার্তা বাজার .কম
আপডেট : জুন ১৪, ২০১৭ , ৭:৫৮ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : খেলাধুলা
পোস্টটি শেয়ার করুন

পক্ষান্তরে ভারত সব সময়ই একটি বড় দল হিসেবে পরিচিত। বিগত কয়েক বছরে বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচ মানেই নতুন উত্তেজনা। এখন আর হারার আগেই ম্যাচ হেরে বসে না বাংলাদেশ। আগামীকালের ম্যাচে কাগজে কলমে যদিও ভারতই এগিয়ে থাকছে। তথাপি বাংলাদেশও একের পর এক বিস্ময় উপহার দিয়ে আসছে। সাম্প্রতিক সময়ে নিজ মাঠে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের জয়ের পাল্লাটা ভারী।

এবার আমরা দুই দলের সর্বেশেষ পাঁচ ওয়ানডের দিকে চোখ দিতে চাই। যেখানে উভয় দলই দুটি করে ম্যাচে জয় পেয়েছে। একটি ম্যাচ হয়েছে পরিত্যক্ত।

বাংলাদেশ-ভারত দ্বিপাক্ষিক সিরিজ, ২০১৫ :
২৪ জুন ২০১৫ মিরপুর, ভারত ৭৭ রানে জয়ী
টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করে শিখর ধাওয়ানের ৭৫ এবং মহেন্দ্র সিং ধোনির ৬৯ রানের সুবাদে ভারত ৩১৭ রান সংগ্রহ করে। জবাবে খেলতে নেমে ব্যাটিং বিপর্যেয়ে পড়ে স্বাগতিক বাংলাদেশ। সুরেশ রায়নার তিন উইকেটের পর রবিচন্দ্রন অশ্বিনের ৩৫ রানে ২ উইকেট শিকারের ফলে ২৪০ রানে গুটিয়ে যায় টাইগাররা। বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন ওপেনার সৌম্য সরকার।
২১ জুন, ২০১৫, মিরপুর
বাংলাদেশ ৬ উইকেটে জয়ী ( ৯ ওভার বাকি থাকতে, বৃষ্টি আইনে)
টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করাপর সিদ্ধান্ত নেন ভারতীয় অধিনায়ক। মুস্তাফিজুর রহমানের ৬ উইকেট শিকারে ধাওয়ানের ৫৩ ও ধোনির ৪৭ রান সত্ত্বেও ২০০ রানে গুটিয়ে যায় ভারত। জবাবে সাকিব আল হাসানের ৫১ রানের সুবাদে ৪ উইকেট হারিয়েই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ।

১৮ জুন, ২০১৫, মিরপুর-বাংলাদেশ ৭৯ রানে জয়ী
টসে জিতে আগে ব্যাটিং করতে নেমে দুই ওপেনার তামিম ইকবালের ৬০, সৌম্য সরকারের ৫৪ এবং মিডল অর্ডারে সাকিব আল হাসানের ৫১ রানের সুবাদে ৩০৭ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। জবাবে মুস্তাফিজুর রহমানের ৫ উইকেট শিকারের রোহিত শর্মার ৬৩ এবং সুরশে রায়নার ৪০ রানের সুবাদে ২২৫ পর্যন্ত যেতে সক্ষম হয় ভারত।

১৯ মার্চ, ২০১৫ (আইসিসি বিশ্বকাপ), মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ড-ভারত ১০৯ রানে জয়ী
প্রথমে ব্যাটিং করতে নেমে রোহিত শর্মার ১৩৭ রানের সুবাদে ভারত ৩০২ রান সংগ্রহ করে। বাংলাদেশের পক্ষে পেসার তাসকিন আহমেদ ৩ উইকেট শিকার করেন। জবাবে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়া বাংলাদেশ ১৯৩ রানে গুটিয়ে যায়।

১৯ জুন, ২০১৪, মিরপুর-পরিত্যক্ত
টসে জিতে আগে ব্যাটিং করতে নেমে বিপর্যয়ে পড়ে ভারত। দুই ওপেনার রবিন উথাপ্পা এবং আজিঙ্কা রাহানে অল্প রানেই আউট হয়ে যায়। বৃষ্টিও কারণে ম্যাচ পরিত্যক্ত হওযার আগে ৩৪.২ ওভারে ভারত ১১৯ রান করতে সক্ষম হয়।

গত পাঁচ ম্যাচ বিবেচনায় ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশ-ভারত সমানে সমান। বাংলাদেশ দলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে পারেন তামিম আকবাল ও মুস্তাফিজুর রহমান। পক্ষান্তরে বাংলাদেশের বিপক্ষে রেকর্ড বিবেচনায় ভারতের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হতে পারেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন।

অবশ্য টাইগারদের বিপক্ষে শিখর ধাওয়ানের রেকর্ডও বেশ সমৃদ্ধ এবং বর্তমান টুর্নামেন্টে দুর্দান্ত ফর্মে আছেন তিনি।—নয়া দিগন্ত অনলাইন

Add Space