১৭, জুলাই, ২০১৮, মঙ্গলবার | | ৪ জ্বিলকদ ১৪৩৯

প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে ৮০ নম্বরের এমসিকিউ পরীক্ষা

আপডেট: এপ্রিল ২০, ২০১৮

প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে ৮০ নম্বরের এমসিকিউ পরীক্ষা

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ-২০১৪ পরীক্ষা ২০ এপ্রিল (শুক্রবার) অনুষ্ঠিত হবে। ওইদিন ১২ জেলায় পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। পরবর্তীতে ধাপে ধাপে বাকি জেলাগুলোতে হবে। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর (ডিপিই) সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

সূত্র জানায়, সহকারী শিক্ষক পদে পরীক্ষা হবে এমসিকিউ পদ্ধতিতে। পরীক্ষার পূর্ণমান ৮০ নম্বর। মোট ৮০টি এমসিকিউ প্রশ্ন থাকবে। প্রতিটি প্রশ্নের সঠিক উত্তরের জন্য ১ নম্বর, আর ভুল উত্তরের জন্য কাটা যাবে ০.২৫ নম্বর। পরীক্ষার সময় ১ ঘণ্টা ২০ মিনিট। পরবর্তীতে ধাপে ধাপে বাকি জেলাগুলোতে পরীক্ষা নেয়া হবে।

এমসিকিউর উত্তরপত্র কালো কালির বলপয়েন্ট কলম দ্বারা ভরাট করতে হবে। উত্তরপত্রে পরীক্ষার সাল হিসেবে ২০১৪, প্রার্থীর রোল নম্বর, প্রশ্নপত্রের সেট কোড, জেলা কোড, উপজেলা/থানা কোড, জেন্ডার সঠিকভাবে পূরণ করতে হবে। একটি প্রশ্নের উত্তরের জন্য একটি মাত্র বৃত্তাকার ঘর ভরাট করতে হবে। কোনো প্রশ্নের উত্তর ভুল হলে তা কেটে অন্য কোনো ঘর ভরাট করা যাবে না।

জেলাগুলো হলো- মেহেরপুর, নড়াইল, চুয়াডাঙ্গা, মুন্সিগঞ্জ, শরীয়তপুর, মাদারীপুর, নারায়ণগঞ্জ, ঝালকাঠি, বরগুনা, ফেনী, লক্ষ্মীপুর এবং জয়পুরহাট। প্রার্থীরা অনলাইনে dpe.teletalk.com.bd ওয়েবসাইট থেকে পরীক্ষার প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে হবে। পরীক্ষা কেন্দ্রে কোনো বই, উত্তরপত্র, নোট, অন্য কোনো কাগজপত্র, ক্যালকুলেটর, মোবাইল ফোন, ভ্যানিটি ব্যাগ, পার্স, হাত ঘড়ি, ইলেকট্রনিক্স হাত ঘড়ি বা যে কোনো ধরনের ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস নিয়ে প্রবেশ করা যাবে না।

এ বিষয়ে ডিপিই’র অতিরিক্ত মহাপরিচালক মো. রমজান আলী জাগো নিউজকে বলেন, ২০১৪ সালের স্থগিত নিয়োগ পরীক্ষা ২০ এপ্রিল (শুক্রবার) থেকে শুরু হবে। পরবর্তীতে ধাপে ধাপে বাকি জেলাগুলোতে পরীক্ষা হবে।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে পরীক্ষার এডমিড কার্ড তৈরি হয়ে গেছে। ডিপিই’র ওয়েবসাইট থেকে প্রার্থীরা এডমিট কার্ড সংগ্রহ করতে পারবেন।