বাংলাদেশে ফ্রান্সকে বয়কটের আন্দোলনে বিপাকে পড়েছে দেশটির প্রবাসী বাংলাদেশিরা

সম্প্রতি মহানবী (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র দেখানোর ঘটনায় ফ্রান্সে এক শিক্ষক খুন হন। সে ঘটনার প্রেক্ষিতে পরবর্তীতে আরব দেশগুলোসহ সমস্ত বিশ্ব ফ্রান্সের বিরোধিতায় জেগে ওঠে। অন্যদিকে শিক্ষক হত্যার পর, পুনরায় ফ্রান্সের নিস শহরে গির্জায় তিনজনকে খুন করেন উগ্রপন্থীরা। বর্তমান পরিস্থিতিতে ফ্রান্স প্রশাসন কঠোর অবস্থান নিয়েছে। সন্ত্রাস ও জঙ্গী নির্মূলে প্রায় ৭০০০ সেনাবাহিনী নামিয়েছে মাঠে।

এইদিকে বাংলাদেশের ফ্রান্স বয়কট আন্দোলনের খবর ফলাও করে প্রচার করছে ফ্রান্সের বিভিন্ন নিউজ মিডিয়া। ফ্রান্সের জাতীয় পত্রিকা টেলিভিশনে নিয়মিত প্রচার হচ্ছে বাংলাদেশের আন্দোলনের ভিডিওচিত্রগুলি। ফ্রান্সের বিভিন্ন নিউজ পেইজে সেদেশের সাধারণ মানুষ বাংলাদেশিদের নিয়ে নানান বিরুপ মন্তব্য করছে।

কেউ কেউ ফ্রান্সে বসবাসরত যে সকল বাংলাদেশিরা রয়েছে তাদেরকে ফ্রান্স ছাড়ার কথা বলছে। কেউ কেউ বলছে বাংলাদেশিরা যেন ফ্রান্সকে সবকিছু থেকেই বয়কট করে। বাংলাদেশিদের বয়কটের ঘোষণাকে পাত্তাই দিচ্ছেননা তারা। বরং তারাই বাংলাদেশকে সবকিছু থেকে বয়কট করার হুমকি দিচ্ছে।

ইউরোপের মধ্যে সর্বপ্রথম বাংলাদেশিদের জন্য রাজনৈতিক আশ্রয় চালু করেছিল ফ্রান্স। এমনকি সমস্ত ইউরোপে ফ্রান্সেই সবচেয়ে বেশি রাজনৈতিক আশ্রয় গ্রহণ করে বাংলাদেশিরা। প্রায় এক লাখের কাছাকাছি বাংলাদেশি রয়েছে ফ্রান্সে। বর্তমান পরিস্থিতিতে বাংলাদেশিদের জন্য ফ্রান্সে রাজনৈতিক আশ্রয় এবং বসবাসরত সকল বাংলাদেশিদের ভাবমূর্তি অন্য দিকে মোড় নিচ্ছে।

যখন ফ্রান্সের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে বাংলাদেশের ফ্রান্স বিরোধী বয়কট সংবাদ বারবার প্রচার হচ্ছে তখন ফরাসিদের কাছে সেদেশে বসবাসরত বাংলাদেশি যারা কর্মরত আছেন তারা কর্মেক্ষেত্রে অনেকে মানসিক চাপ ও প্রশ্নের সম্মুখীন হচ্ছেন। ফ্রান্সের সাধারণ মানুষ এটাকে রাষ্ট্রীয় বিদ্বেষ হিসেবে মনে করছেন।

গত একমাসে সমস্ত ফ্রান্স থেকে ১৪ জন চরমপন্থীকে নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠিয়েছে দেশটির সরকার। অন্যদিকে নতুন আরো ১৮ জনকে ফেরত পাঠানোর প্রস্তুতিও প্রায় শেষের দিকে। যে ১৪ জনকে ফ্রান্স থেকে ফেরত পাঠানো হয়েছে তাদের মধ্যে আছে ৪ জন তিউনিশিয়ান নাগরিক। বাকিরা রাশিয়ান, আলজেরিয়ান, ইরাক, জর্জিয়ান, বাংলাদেশী ও মরক্কোর নাগরিক।

বর্তমানে ফ্রান্সে বসবাসরত অধিকাংশ বাংলাদেশিরা খুব দুঃচিন্তায় দিন কাটাচ্ছে। একদিকে করোনার জন্য অনেকের কাজ নেই, তার উপর ফ্রান্সের সাধারণ মানুষের মনে বাংলাদেশিদেরকে নিয়ে যে নেতিবাচক মনোভাব তৈরী হচ্ছে তার জন্য ভবিষ্যতে চরম মূল্য দিতে হতে পারে
দেশটিতে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের। এমনটাই ধারণা করছে অনেকেই।

বার্তাবাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
এই বিভাগের আরো খবর