২০, জুলাই, ২০১৮, শুক্রবার | | ৭ জ্বিলকদ ১৪৩৯

স্বামীর হাতে খুন হওয়া আলফাডাঙ্গার কন্যা লিপি’র লাশ দাফন সম্পন্ন

আপডেট: জুলাই ১৪, ২০১৮

স্বামীর হাতে খুন হওয়া আলফাডাঙ্গার কন্যা লিপি’র লাশ দাফন সম্পন্ন

মিয়া রাকিবুল, আলফাডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ বছর নয়েক পূর্বে ফরিদপুর জেলার আলফাডাঙ্গা উপজেলার ৩নং আলফাডাঙ্গা ইউনিয়নের ধলাইচর গ্রামের ইউনুচ শেখের কন্যার বিয়ে হয় পার্শ্ববর্তী গোপালগঞ্জ জেলার কাশিয়ানী গ্রামের বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের আব্দুল জলিল মোল্যার ছেলে ইব্রাহীম মোল্যার সাথে।কিন্তু ঘাতক স্বামীই তাকে গত বুধবার দিবাগত রাতে এ জীবনের আলো দেখা বন্ধ করে দেয়।

জানা যায়, ১০ই জুলাই বুধবার রাতে বেলজিয়াম এবং ফ্রান্সের মধ্যকার বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল ম্যাচ দেখতে না দেওয়ায় ছুরিকাঘাতে ঘাতক স্বামী ইব্রাহীম মোল্লা নিজেই হত্যা করে তার স্ত্রী লিপি বেগমকে।

গত ১০ই জুলাই বুধবার রাতে বেলজিয়াম এবং ফ্রান্সের মধ্যকার বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল ম্যাচ দেখতে যেতে চাচ্ছিলেন ইব্রাহীম শেখ।তবে এতে তার স্ত্রী লিপি বেগম বাঁধা দেন।এনিয়ে দু’জনের মধ্যে কথা কাঁটা কাটি হয়।এক পর্যায়ে স্বামী ঘরে থাকা ছুরি স্ত্রীর পেটে ঢুকিয়ে দেয়।এতে মারা যান স্ত্রী লিপি বেগম।

পাষণ্ড স্বামী ইব্রাহীম পুলিশকে জানান, রাগের বসে সে তার স্ত্রীর পেটে ছুরি ঢুকিয়ে দেয়। রক্ত দেখে সে হতবিহবল হয়ে পড়ে। পরে হুশ ফিরলে ঘরে সিঁদ কেটে ডাকাত ঢুকে তার স্ত্রীকে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করে এবং তাকেও পিটিয়ে আহত করে এমন গল্প বানায়।

ঘটনার পরে তিনি পুলিশকে জানিয়েছিলেন, এলাকাবাসী তাদেরকে উদ্ধার করে কাশিয়ানী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে লিপি বেগমের অবস্থার অবনতি ঘটলে ঢাকা নেওয়ার পথে ফেরীতে ওই গৃহবধূ মারা যান। কিন্তু, তার এই গল্প শুনে পুলিশের সন্দেহ হলে ফরিদপুর মেডিকেলে গিয়ে ইব্রাহীমকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সে স্ত্রী লিপি বেগমকে হত্যার কথা পুলিশের কাছে স্বীকার করে।

লাশের ময়না তদন্ত শেষে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১টার সময় আলফাডাঙ্গার জাটীগ্রাম-মিঠাপুর মাদ্রাসা সংলগ্ন কবরস্থানে লিপি বেগমের লাশ দাফন করা হয়েছে।