২২, জুলাই, ২০১৮, রোববার | | ৯ জ্বিলকদ ১৪৩৯

তৃতীয় হওয়ার লক্ষ্য বেলজিয়ামের

আপডেট: জুলাই ১২, ২০১৮

তৃতীয় হওয়ার লক্ষ্য বেলজিয়ামের

সুযোগ নষ্টের মাশুল দিয়ে বিশ্বকাপের সেমি-ফাইনাল থেকে ছিটকে পড়ায় ভীষণ হতাশ দলকে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচের জন্য চাঙা করার চেষ্টা চালাচ্ছেন বেলজিয়ামের কোচ রবের্তো মার্তিনেস।

সেন্ত পিতার্সবুর্গ স্টেডিয়ামে গত মঙ্গলবার রাশিয়া বিশ্বকাপের প্রথম সেমি-ফাইনালে ফ্রান্সের কাছে ১-০ গোলে হারে বেলজিয়াম। ৫১তম মিনিটে অঁতোয়ান গ্রিজমানের কর্নারে লাফিয়ে উঠে করা সামুয়েল উমতিতির গোলটিই মার্তিনেসের দলের বিদায় ঘণ্টা বাজিয়ে দেয়। সেট পিস থেকে গোলে হেরে যাওয়ায় বেলজিয়াম কোচের হতাশা আরও বেশি।

“এটা খুবই আঁটসাঁট ম্যাচ ছিল। খুব বেশি বড় মুহূর্ত ছিল না … জয় এবং হারের মধ্যে পার্থক্য ছিল স্রেফ একটা ডেড বল পরিস্থিতি।”

“আমরা তাদের প্রতিআক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করেছিলাম। আমরাও বল পেয়েছিলাম কিন্তু ফ্রান্স যেভাবে রক্ষণ সামলেছে সেজন্য তাদের কৃতিত্ব দিতে হবে এবং আমরা গোলমুখে একটু জাদুর ছোঁয়া খুঁজে পাইনি।”

“ভীষণ হতাশাজনক…এ মুহূর্তে ড্রেসিংরুম খুবই দুঃখভারাক্রান্ত। আমি চাইনা আমার কোনো খেলোয়াড়ই হতাশ হয়ে পড়ুক। কিন্তু এই আবেগ নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন। ছেলেরা হতাশ, কেননা তারা সেমি-ফাইনালে হেরেছে এবং এখন ইতিবাচক মানসিকতা নিয়ে আরেকটা ম্যাচ খেলা তাদের জন্য কঠিন।”

হতাশা ভুলে দলকে তৃতীয় স্থান নিয়ে রাশিয়ার আসর শেষ করার তাগিদ দিচ্ছেন মার্তিনেস।

“আমাদের পুনরায় একত্রিত হয়ে এবং ধাক্কা কাটিয়ে উঠে সুযোগটা দেখা দরকার। তৃতীয় হয়ে বিশ্বকাপ শেষ করতে যাওয়ার সুযোগও সচারচর আসে না। বেলজিয়ান ফুটবলে এটা ১৯৮৬ সালে একবারই ঘটেছিল, যখন আমরা চতুর্থ হয়ে শেষ করেছিলাম।”

“আমাদের বোঝা দরকার এটা একটা গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। কিন্তু আমি মেনে নিচ্ছি আজকের ম্যাচের পর আমাদের যে আবেগ পেয়ে বসেছে তাতে পরের ম্যাচটা খুবই কঠিন। যখন আপনার আকাঙ্ক্ষা ছিল ফাইনাল খেলা, সেটা পূরণ না হলে ব্যক্তিগত বা দলীয়ভাবে পরের ম্যাচের জন্য প্রস্তুত হওয়া কঠিন।”