২৩, অক্টোবর, ২০১৮, মঙ্গলবার | | ১২ সফর ১৪৪০

‘সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে কাজ করবো’

আপডেট: মে ১৫, ২০১৮

‘সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে কাজ করবো’

খুলনা সিটি নির্বাচনে বিপুল ব্যবধানে জয়ী নৌকা প্রতীকের প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, আমি সবাইকে নিয়েই কাজ করবো। পরাজিত প্রার্থীদের সঙ্গে নিয়েও নগরের উন্নয়নে কাজ করবো।

নির্বাচনে জয়ের আভাস পেয়েই সাংবাদিকদের কাছে এমন মনোভাব ব্যক্ত করেন আওয়ামী লীগের মেয়রপ্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক।

সর্বশেষ খুলনা সিটি নির্বাচনে ২৮৯ টি কেন্দ্রের মধ্যে ২৮৬ কেন্দ্রের ফলাফলে নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষের মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জুর চেয়ে ৬৭,৯৪৬ ভোট বেশি পেয়েছেন।

সর্বশেষ ফলাফলে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ১,৭৬,৯০২ ভোট, আর বিএনপি’র নজরুল ইসলাম মঞ্জু ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ১,০৮,৯৫৬ ভোট।

এরই মধ্যে তালুকদার আব্দুল খালেককে বেসরকারি ভাবে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে। তিনি আবারও খুলনার নগরপিতা হতে চলেছেন। এর আগে ২০০৮ থেকে ২০১৩ পর্যন্ত খুলনার মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন তালুকদার আব্দুল খালেক।

অপর দিকে ভোটের সময় প্রায় পুরোটাই সংবাদমাধ্যমের কাছে ভোটগ্রহণে অনিয়ম হচ্ছে বলে অভিযোগ করে যান বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকের মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু। সন্ধ্যায় ফলাফল আসতে শুরু করলে তাঁর পরাজয়ের বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে পড়ে। ওই সময় নির্বাচনে শতাধিক কেন্দ্রে অনিয়মের অভিযোগ এনে পুণরায় ভোট গ্রহণের দাবি করেছেন বিএনপির মেয়রপ্রার্থী।

মঙ্গলবার সকাল ৮টায় একযোগে খুলনা সিটির ২৮৯টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। দু-একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ছাড়া বড় কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন সম্পন্ন হয়। খুলনা নগরবাসী স্বতস্ফূর্তভাবে ভোটা দিয়েছেন। ভোট গ্রহণ চলে বিকাল ৪টা পর্যন্ত।

খুলনা সিটিতে মেয়র পদে পাঁচজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন, সংরক্ষিত ১০টি ওয়ার্ডে ৩৯ জন এবং ৩১টি সাধারণ ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন ১৪৮ জন কাউন্সিলর প্রার্থী ।

খুলনা সিটি নির্বাচনে ৪৬ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এ নগরীতে মোট ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৯৩ হাজার ৯৩ জন, যার মধ্যে পুরুষ ২ লাখ ৪৮ হাজার ৯৮৬ জন ও নারী ভোটার ২ লাখ ৪৪ হাজার ১০৭ জন।