২৫, জুন, ২০১৮, সোমবার | | ১১ শাওয়াল ১৪৩৯

ভিডিও ভাইরাল, পরিবার ফিরে পেলেন নব্বই বছরের বৃদ্ধ!

আপডেট: জুন ১৩, ২০১৮

ভিডিও ভাইরাল, পরিবার ফিরে পেলেন নব্বই বছরের বৃদ্ধ!

এ-ও যেন এক পুনর্জন্ম!

মাত্র ৩০ সেকেন্ডের একটি ভিডিও।আর তাতেই কার্যত পুনর্জন্ম হল মুম্বইয়ের নবতিপর বৃদ্ধের। পরিবার ফিরে পেলেন বাইকুল্লার ভিখাজি পানসারে।সৌজন্যে সোশ্যাল মিডিয়া। সেইসঙ্গেই ফের ধরা পড়ল পুলিশের মানবিক মুখ।

মুম্বইয়ের বাইকুল্লা এলাকায় বছর নব্বইয়ের বৃদ্ধ ভিখাজি পানসারে থাকতেন পরিবারের সঙ্গেই। কয়েক মাস আগে আচমকাই বাড়ি থেকে উধাও হয়ে যান ভিখাজি। আত্মীয়স্বজন, পরিচিতদের কাছে খোঁজখবরকরেও কোনও হদিস পায়নি পরিবার। শেষ পর্যন্ত তারা পুলিশের দ্বারস্থ হয়। বাইকুল্লা থানায় দায়ের হয় নিখোঁজ ডায়েরি। পুলিশ নিয়মমাফিক মহারাষ্ট্রের প্রায় সব থানায় ছবি-সহ খবর পাঠিয়ে দেয়। কিন্তু ওই পর্যন্তই। পরিবারের লোকজনও কার্যত হাল ছেড়েই দিয়েছিলেন। নাতিনাতনিরাও কার্যত ধরেই নিয়েছিলেন, আর কোনওদিন পরিবারে ফিরবেন না তাঁদের আদরের দাদু। নিশ্চয়ই কোনও অপঘাতে মৃত্যু হয়েছে তাঁর।

আর ঠিক সেই সময়েই প্রায় দেবদূতের মতো হোয়াটসঅ্যাপে একটি ফরওয়ার্ডেড ভিডিও চলে আসে ভিখাজির প্রতিবেশী এক পুলিশঅফিসারের মোবাইলে। তিনি মুম্বইয়ের শিবাজি পার্ক থানার হেড কনস্টেবল অশোক ভূজবল।

কী রয়েছে সেই ভিডিওতে?

৩০ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, রাস্তায় অসহায় এক বৃদ্ধকে নিজের হাতে খাবার খাওয়াচ্ছেন এক পুলিশ অফিসার। চেষ্টা করছেন বৃদ্ধের সঙ্গে কথা বলে তাঁর পরিচয় জানার। পরে জানা যায়, নাসিরুদ্দিন শেখ নামে ওই পুলিশ অফিসার শোলাপুর থানার হেড কনস্টেবল। বৃদ্ধকে খাওয়ানোর ওই দৃশ্য মোবাইলে ক্যামেরাবন্দি করেন অন্য এক পুলিশ অফিসার। তিনিই ওই ভিডিও কয়েকজনকে শেয়ার করেন। তারপরই ভাইরাল হয়ে যায় সেই ভিডিও।

ফরওয়ার্ড হতে হতে অশোক ভূজবলের কাছে যখন পৌঁছয় সেই ভিডিও, তিনি দেখেই চিনতে পারেন ভিখাজিকে। ডেকে পাঠান পরিবারের লোকজনকে। তাঁরাও চিনে ফেলেন তাঁদের পরিবারের প্রবীণতম সদস্যকে।

এরপরই শিবাজি পার্ক থানার পুলিশ অফিসার অশোক ভূজবল যোগাযোগ করেন নাসিরুদ্দিনের সঙ্গে। ‘ভার্চুয়াল’ যোগসূত্র মিলে যায় বাস্তবের সঙ্গে। ভিখাজি ফিরে পান পরিবার। পরিবারের সদস্যরাও বলছেন, পুনর্জন্ম হল ভিখাজির।