২১, নভেম্বর, ২০১৮, বুধবার | | ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

মারাত্মক এই ব্যাধি থেকে এবার সহজেই মিলবে মুক্তি

আপডেট: জুন ১৩, ২০১৮

মারাত্মক এই ব্যাধি থেকে এবার সহজেই মিলবে মুক্তি

জটিল ব্যাধির তালিকায় অনেক আগেই যুক্ত হয়েছে এইচআইভির নাম। গবেষণা চলছে বহুদিন ধরেই। মেলেনি কোন স্থায়ী সমাধান। তবে, এবার আশার আলো দেখেছেন বিজ্ঞানীরা। গবেষণায় পাওয়া গিয়েছে এক ধরণের ট্রেগ কোষের নাম, যা নিয়ন্ত্রণকারী লিম্ফোসাইটের একটি ধরণ। যেটি মাতৃগর্ভে শিশুদের রক্ষা করে এই মারণ ভাইরাস থেকে। বহু বিজ্ঞানীর কাছেই বিষয়টি কঠিন ধাঁধার মতোই দুর্বোধ্য। ধোঁয়াশা কাটেনি পুরোপুরিভাবে। তবে, সেই ক্ষীণ আলোতেই উঠে আসছে একাধিক নতুন তথ্য।

মায়ের থেকে শিশুর শরীরে ভাইরাসটির সংক্রমণ অস্বাভাবিক নয়। সমাজে এইরকম উদারহণ রয়েছে ভুরিভুরি। তবে, এখন বিজ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে ভাইরাসটিকে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে। বাজারে এসেছে সেই রকমই ওষুধ। নতুনভাবে জীবনদান সম্ভব হবে ওষুধটির মাধ্যমে। ভাইরাসটিকে প্রতিরোধ করা ভীষণ প্রয়োজন। তবে, এখনও পর্যন্ত রোগটি নিয়ন্ত্রনের জন্য সেরকম কোন ভ্যাকসিন আবিষ্কার সম্ভব হয়নি।

গবেষকরা দেখেছেন, এইচআইভি আক্রান্ত যে সব নবজাতকের শরীরে ট্রেগ লিম্ফোসাইটের মাত্রা বেশি তারা সময়ের সঙ্গে নিজে থেকেই ভাইরাসমুক্ত হয়েছেন। ইমিউন সিস্টেমের একটি গুরুত্বপূর্ণ কোশ হল লিম্ফোসাইট। যা অবাঞ্ছিত ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়ার সঙ্গে লড়াই করে শরীরকে সুস্থ রাখে। তবে, অতিরিক্ত পরিমান লিম্ফোসাইট আবার স্বাভাবিক কোশের ক্ষতি করতে পারে।

গবেষকরা নবজাতকদের রক্তের নমুনা পরীক্ষা করে দেখেছেন। জন্মের সময় ট্রেগ কোশের মাত্রা তুলনামুলক ভাবে বেশি অসংক্রামিত শিশুদের দেহে। অপরদিকে দেখা গিয়েছে অন্য এক ধরণের লিম্ফোসাইট অনেক বেশি সক্রিয় এইচআইভি আক্রান্ত শিশুদের মধ্যে। এইচআইভির মতো সংক্রামক ব্যাধির স্থায়ি সমাধানের জন্য এই ধরণের গবেষণা হতে পারে প্রথম পদক্ষেপ।