আজ শনিবার সকাল ৭:০১, ২১শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং, ৬ই কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৩০শে মুহাররম, ১৪৩৯ হিজরী

চলতি সপ্তাহেই নতুন রেকর্ড সৃষ্টির অপেক্ষায় পুঁজিবাজার

নিউজ ডেস্ক | বার্তা বাজার .কম
আপডেট : মার্চ ১২, ২০১৭ , ২:২৫ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : শেয়ার নিউজ
পোস্টটি শেয়ার করুন

লেনদেন ও সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় চলতি বছরের ২৪ জানুয়ারি সূচক ও লেনদেনে রেকর্ড গড়েছিল দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। ওই সময় বাজারের সার্বিক মূল্য সূচক ৫৭০৮ পয়েন্ট অতিক্রম করে ইতিহাস সৃষ্টি করে। এর পর অব্যাহত দর পতনে বাজারের সার্বিক মূল্য সূচক কমেছিল প্রায় ৫০০ পয়েন্ট।

কিন্তু সদ্য সমাপ্ত সপ্তাহে সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা অব্যাহত থাকায় চলতি সপ্তাহেই নতুন রেকর্ড গড়তে পারে পুঁজিবাজার। কেননা, অব্যাহত উত্থানে সার্বিক মূল্য সূচক ৫৭০৮ পয়েন্ট অতিক্রম করতে মাত্র ৩৬ পয়েন্ট দূরে অবস্থান করছে।

বাজার বিশ্লেষনে দেখা যায়, গত সপ্তাহে ডিএসইতে ৩৩৪টি কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৪৭টির, কমেছে ১৫২টির ও অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৪টির। এ সময় ডিএসইতে ১৪৯ কোটি ৫ লাখ ২০ হাজার ৪৪১টি শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে শেয়ার লেনদেন বেড়েছে ৩.২০ শতাংশ।

গতসপ্তাহে ৫ কার্যদিবসে ডিএসইতে ৫ হাজার ৩৭০ কোটি ৬০ লাখ ৫১ হাজার ২৭৪ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এর আগের সপ্তাহের ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ৫ হাজার ৩৫৮ কোটি ৩৪ লাখ ৫৯ হাজার ৪৮ টাকা। সে হিসেবে সার্বিক লেনদেন বেড়েছে ০.২৩ শতাংশ।

এদিকে, গত সপ্তাহে ডিএসইতে দৈনিক গড় লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৭৪ কোটি ১২ লাখ টাকা। যা আগের সপ্তাহে ছিল ১ হাজার ৭১ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। অর্থাৎ আগের সপ্তাহের তুলনায় ডিএসইর দৈনিক গড় লেনদেন কমেছে ০.২৩ শতাংশ।

মোট লেনদেনের ৯১.৪৭ শতাংশ ‘এ’ ক্যাটাগরিভুক্ত, ৪.৩০ শতাংশ ‘বি’ ক্যাটাগরিভুক্ত, ৩.১২ শতাংশ ‘এন’ ক্যাটাগরিভুক্ত এবং ১.১১ শতাংশ ‘জেড’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিটের মধ্যে লেনদেন হয়েছে।

এদিকে, গত সপ্তাহে ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ৮৪.৮৭ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৬৭১.৬২ পয়েন্টে। এদিকে, গত সপ্তাহে ডিএসই`র শরিয়াহভিত্তিক কোম্পানিগুলোর মূল্য সূচক ডিএসইএস ৮.১৫ পয়েন্ট বেড়ে ১৩১২.১৭ পয়েন্টে স্থিতি পায়। পাশাপাশি ডিএস-৩০ সূচক ২৮.৬০ পয়েন্ট বেড়ে ২০৪৯.৬৪ পয়েন্টে স্থিতি পায়।

সপ্তাহের শুরুতে ডিএসই’র বাজার মূলধন ছিল ৩ লাখ ৭২ হাজার ৯০৯ কোটি টাকা ।সপ্তাহের শেষে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৭৬ হাজার ৩৯৮ কোটি টাকায়। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে বাজার মূলধন বেড়েছে ০.৯৪ শতাংশ।

সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে টার্নওভার তালিকায় শীর্ষে ছিল আর্থিক খাতের তালিকাভুক্ত কোম্পানি লঙ্কাবাংলা ফাইন্যান্স। কোম্পানিটির ২৪৩ কোটি ৪৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। যা ডিএসইর সর্বমোট লেনদেনের ৪.৫৩ শতাংশ। টার্নওভারে দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল বারাকা পাওয়ার, কোম্পানিটির ১৪১ কোটি ৯২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। ১৩৭ কোটি ৪১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মধ্য দিয়ে টার্নওভার তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে উঠে আসে জিপিএইচ ইস্পাত।

এছাড়াও টার্নওভার তালিকায় থাকা অন্যান্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে- ইসলামি ব্যাংকের ১২৮ কোটি ২১ লাখ টাকা, বেক্সিমকোর ১২৬ কোটি ৫৯ লাখ টাকা, আরএসআরএম স্টিলের ১২৬ কোটি ১৭ লাখ টাকা, বিডি থাই, ১১৬ কোটি ৩৭ লাখ টাকা, কেয়া কসমেটিকসের ১০৪ কোটি ২৪ লাখ টাকা, সেন্ট্রাল ফার্মার ১০২ কোটি ৩৬ লাখ টাকা ও সিটি ব্যাংকের ১০০ কোটি ৬৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।